নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • আলমগীর কবির
  • মিঠুন বিশ্বাস

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

অনুকাব্য

অলৌকিক আগুন (শাজাহান বাচ্চু স্মরণে)


কিছুই থামেনি, কখনই থেমে ছিলো না ওসব,
গোপন ভোঁজালিতে শাণ দেওয়ার স্ফুলিংগ কেবল আমাদের
চোখে পৌছেনি।
অভিশপ্ত নগরী জেগেই ছিলো, অলৌকিক আগুন
নিভেনি কখনও আর, মিছিল পোড়ার শব্দ কেবল আমাদের
কানে আসেনি।
কুপমন্ডুকতা বেঁচেই আছে, অপদেবতা হতে কখনও
হয়নি নির্বাণ লাভ, লালা ঝড়ানো তীব্র নখের হিসহিস শুধু
টের পায়নি।

ম্যাচিউরিটি


ম্যাচিউরিটি মানে?
-মনের বিপরীতের ব্যাপারগুলোও হাসিমুখে সামলে নেয়া...। Smile

বোকা


মাঝে মাঝে নিজেকে খুব বোকা মনে হয়। আমি মানুষ চিনি খুব দেরীতে, কিন্তু এখন চিনি। কিছুটা হলেও চিনি। প্রতিনিয়ত কাউকে না কাউকে চিনাচ্ছি। বড় হচ্ছি ধীরে ধীরে, খুব ধিরে...।।

তোমার অামার প্রেমকাব্য


প্রজাপতি বসেছে সন্ধ্যামালতীর ডালে। মাছরাঙ্গা উঁকি মারছে শুকনোপ্রায় খালে। মুকুলিকায় ভরে গেছে জারুলের ডাল, কাঠঠোকরা তুলে নিল চালতার ছাল।
সোনালু ছড়াচ্ছে তার স্বর্ণ-অাভা, কোকিল শোনাচ্ছে তার সুরের বিভা।
অশোকের মূল অবারিত করেছে তার ফুল। জুঁই, চামেলি, কাঠগোলাপ, হাসনাহেনা, কামিনী সবাই যেন প্রতিযোগ করছে - কে দেখাবে তার রঙের চ্ছটা, কে খুলবে তার ঘ্রাণের বাটা।
ডালিয়া গর্ব করছে তার বড়ত্ব নিয়ে।
অাজি বসন্তে হইছে কোকিল-শালিকের বিয়ে।

অাগুনঝরা এই দিন শেষ হোক বা না হোক, প্রিয়া তুমি অামার।
তারও অাগে, সেই জোৎস্নাবিধৌত রাতে, অামি হয়েছিলাম তোমার।

আমি কখনো রিস্ক নি ইনা !


মদ খাওয়ার সময় আমি কোন রিস্ক নিই না।

অফিস থেকে সন্ধ্যেবেলা বাড়ি ফিরে দেখি গিন্নি রান্না করছে। রান্নাঘর থেকে বাসনের আওয়াজ আসছে।

আমি চুপিচুপি ঘরে ঢুকে পড়লাম।

গোপনে কালো রঙের আলমারি থেকে বোতলটা বার করলাম।

নেতাজি ফটো ফ্রেম থেকে আমাকে দেখছেন।

কিন্তু এখন পর্যন্ত কেউ কিচ্ছুটি টের পায়নি। কারণ আমি কোন রিস্ক নিই না।

চুপিচুপি নবীনাম


পুরনো দিনের বিখ্যাত গান "চুপি চুপিচুপি বল কেউ" এর ইসলামি প্যারোডি তৈরি হয়ে গেল। অাসুন পাঠ করি, দোজাহানের অশেষ কামিয়াবি হাসিল করি!

~ চুপিচুপি নবীনাম ~

চুপি চুপি নবীনাম জপ কর,
জপ করো নাম জপ কর।

ভয় করেনা মুমিন কোনকিছু,
যদি হুরী মেলে তার জিহাদেতে।

চুপি চুপি নবীনাম জপ কর,
জপ করো নাম জপ কর।

ভয় করেনা মুমিন কোনকিছু,
যদি হুরী মেলে তার জিহাদেতে।
চুপি চুপি নবীনাম জপ কর,
জপ করো নাম জপ কর।

যে যাই বলুক নবী যে তোমার,
ঘাড় কেটেছ, অাছে গো খোয়ার।
যে যাই বলুক নবী যে তোমার,
ঘাড় কেটেছ, অাছে গো খোয়ার।

হিউম্যান ডাক্তার


কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে এ কবিতা লিখিনি, এটা হৃদয়ের তাড়না থেকে লিখেছি। নারী নির্যাতনের উগ্র সমর্থকদের বিরুদ্ধে লিখেছি এটি।
সুতরাং নারী নির্যাতকদের অনুভূতি অাহত হলে অামার কিছু করার নেই।
~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
হিউম্যান ডাক্তার গাল ভরা রাগ তার
সন্দেহে বউ মারে পিটিয়ে,
মার চলে রাতদিন নারীজাতি পরাধীন
মানবতা যান তিনি বিলিয়ে।

ইয়া বড় ঝাড়িদার, চুল টানে ফরিদার
বলে কথা মানবতা সকাশে,
থিওরিতে পড়ে টান, এই বুঝি যায় মান
উস্কাতে অতি বড় পাকা সে।

গরুত্বের গুরুত্ব


গরুবাদীরা গরু হয়ে অাজ পাড়ায় পাড়ায় নাচে,
গরুকে ওদের বাঁচাতে হবে, যদিও না মানুষ বাঁচে।

গঙ্গানদের দূষিত পানি খেয়ে,
হেঁরে গলায় যায় গরুত্বের গান গেয়ে।

নর্দমাতে পূণ্য স্নানে যেয়ে,
লোক দেখলে অাবাল চোখে থাকে শুধু চেয়ে!

কানের পর্দা বেশ খানিকটা ভারি,
কপালমাঝে গোপাল সারি সারি।
শুনতে পাওনা? বললে করে অাড়ি।

হাতে সুতা, গলায় তাগা, ঘরেতে ঠাকুর,
বাইরে এসে গলায় ধরে মুক্তকথার সুর।

গরুর প্রতি স্নেহ-দয়া অচিন্ত্য অসীম,
বললে অাবার গরুর কথা, বলে ঘোড়ারডিম!

গুপ্তকেশ অার রয়না সুপ্ত, দেখে সকলে,
লাজলজ্জার মাথা খেয়ে চলে নকলে।

মালাউনের মেয়ে


পেয়েছ কি মহাসুখ?

বন্ধুকে বলেছ কি - করেছ তুমি রেপ,
কি মজাটাই পেয়েছ বুঝি - কি অপূর্ব খেপ!

পটিয়েছিলে বেশ কিছুদিন, হয়নি তাতে কাজ,
অবশেষে করেই ফেললে.... ছুঁড়ে দিয়ে লাজ!

চিৎকার করে কেঁদেছিল সে, গামছাবাঁধা  দিলে,
কি সুবিধাটাই হলো তোমার, একাই সুখ নিলে!

কতবড় বীর যে তুমি, বন্ধু বলেছে নাকি,
বন্ধুকে বলেছ - অারো নাকি, তিনটে খেপ বাকি!

সাবাশ বেটা, পুরুষ তুমি, কি অপূর্ব বল,
রেপের সময় অাটকাতে পার, অার্তনাদের গল!

এর অাগেও শিউলি রাণীকে পেয়েছ পাটেরক্ষেতে,
হয়েছে দেখা, বীরেন স্যারের কোচিংয়েতে যেতে।

পৃষ্ঠাসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর