নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 0 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

নতুন যাত্রী

  • সুশান্ত কুমার
  • আলমামুন শাওন
  • সমুদ্র শাঁচি
  • অরুপ কুমার দেবনাথ
  • তাপস ভৌমিক
  • ইউসুফ শেখ
  • আনোয়ার আলী
  • সৌগত চর্বাক
  • সৌগত চার্বাক
  • মোঃ আব্দুল বারিক

আপনি এখানে

পাব্লিক স্থানে নারীর সিগারেটের ধোঁয়ায়, পুরুষের ফুসফুস কালো৷


একটা ভিডিওতে দেখা গেলো পুরুষের পাব্লিক জায়গায় সিগারেট খাওয়াটা স্বাভাবিক কিন্তু নারীর হলে নষ্টামি৷
বেশ লাগলো ভিডিওটা, হ্যাঁ তুমিতো নারী তুমি সিগারেট খাবা কেন? ভিডিওটাতে তুলে ধরেছে আমি পাব্লিক প্যালেজে গেঞ্জি শার্ট খুলে হাঁটতে পারবো, তুমি পারবা? তারপর গাড়ির সিট, কোটা এবং শক্তিতে পুরুষ এগিয়ে এরকম আরো যুক্তি ছিলো৷ বাহ বাহ, বেশ বেশ, খুব ভালো৷ এই না হলে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্র/ছাত্রী বা শিক্ষিত সমাজ? আমরা তেমন লেখাপড়া করিনি, তাই শিক্ষিত ছেলে মেয়েরা যা বলেছে তা বুঝেই বলছে, আমরা এর কি বুঝি? খারাপতো বলেনি৷৷

আমি ছোট থাকতে প্রায় বুড়ো বুড়ীকে হুক্কা, বিড়ি এসব টানতে দেখেছি৷ এমন কি আমার দাদা দাদীকেও৷ আমি নিজেই ধুমপান করি৷ তাই বলে এই নয় কেউ ধুমপান নিষেধ করলে সেটা অন্যায় হবে৷ কথা হলো শুধু নারীকে কেন? পুরুষ করলে স্বাভাবিক আর নারী করলে অস্বাভাবিক? দুজনকেই বলা যেত না? নাকি উষ্ঠা খাওয়ার ভয়!! আবার বলা হলো যেখানে নারীকে ধুমপান করতে দেখবে সেখানে যেন ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে আপলোড করা করা হয়৷ ব্যপারটা এরকম- সিগারেটের প্যাকেটে লেখা ধুমপান মৃত্য ঘটায়, তাও মৃত্যুর বিষ হাতে দিয়ে৷ ধুমপান না করতে বক্তা ভাষণ দিয়ে নেমেই একটা সিগারেট ধরিয়ে বললো বক্তব্য কেমন হয়েছে? পুরুষ পাব্লিক প্যালেজে সিগারেট টেনে মেয়েরা টানলে ভিডিও ছবি আপলোড দিবে, ভালো না?

ঐ ভিডিওতে যারা নারীর পক্ষে দাড়ালো, তাদের মা বোন তুলে কি গালাগালি তাও সমাজ সচেতন লোকদের মুখে যারা বলছে আধুনিকতার নামে নষ্টামি এবং সব শেয়ালে নাকি মুরগির স্বাধীনতা চায় মুরগি ধরে খাবার জন্য তদ্রুপ যারা নারীর পক্ষ নিচ্ছে তারা নাকি নারীকে উলঙ্গ করার জন্য নারীর স্বাধীনতা চায়৷ হাসলাম কিছুক্ষন৷

প্রথমত সিগারেটের সাথে উলঙ্গতার সম্পর্ক কি বুঝিনি৷ তারপর শেয়াল যে মুরগির স্বাধীনতা চায় সেটা একই শ্রেনীর পশু না হলে বুঝা যাবে না৷ তারপর মোরগ স্বাধীন হলে শেয়াল মোরগ খাবেনা এমনটা যুক্তি, কারণ শেয়ালতো শুধু মুরগিরই স্বাধীনতা চাইলো তাই না? অর্থ্যাৎ মোরগ মুগির ভাবনাটাও পুরুষতান্ত্রীক৷

এবার আসি, পুরুষ গেঞ্জি খুলে হাঁটা বাহাদুরি, নারী পারবে কিনা? আমি বলি পুরুষকে জাঙ্গিয়াটা সহ খুলে হাঁটতে কারণ এই বাক্যটার পেছনে স্তনকে ইঙ্গিত করা হয়েছে৷ মানে নারী স্তন দেখিয়ে হাঁটতে পারবে না কাপড় ব্যতিত৷ যদি তাদের চোখে স্তনকে যৌন অঙ্গ ধরি তবে আগে পুরুষের যৌন অঙ্গ দেখিয়ে পাব্লিক প্যালেজে হেঁটে দেখানো উচিত৷ যদি না পারে তাহলে নারী পারবে না, যদি পারে নারীও পারবে৷

তারপর যে কথাটি বলা হলো স্বাভাবিক সেখানে পুরুষকে দেখতে দেখতে নাকি অভ্যস্ত তাই সেটা খারাপ নয়৷ বলি নারীকে তবে নিষেধ কেন? নারীরটাও দেখতে দেখতে অভ্যস্ত হলে সেটা স্বাভাবিক হয়ে যাবে৷ নারী খেলে পুরুষের ফুসফুস বয়লার কয়লা হয় কেন? নিষেধ হলে দুজনেরই হবে৷ এটা কি নারীর উপর মরদগিরি?

গাড়ির সিট, চাকরির কোটা, গায়ের শক্তি এগুলোর ব্যপারে বলতে গেলে জন্ম হতে গোড়া টান দিতে হবে৷ তাছাড়া অধিকার অনুযায়ী চার ভাগের তিন ভাগ পুরুষকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করতে হবে, গাড়িতে নারীর সিট সামনের ইঞ্জিনের উপর কেন! পুরো গাড়ির অর্ধেক সিটে নারীর অধিকার আছে সুতরাং একপাশ পুরুষে ভরে গেলে নারী উঠলেই অন্যপাশ ছেড়ে দিতে হবে তাদের যুক্তি প্রসঙ্গে৷ এটাইতো সমান অধিকার৷ আর শক্তি? নারী প্রধানমন্ত্রী, নারী বিমান চালায়, গাড়ি চালায়, বিজ্ঞানী, শিক্ষাগুরু এসবে গেলাম না৷ আমার কথা তাক করি পাহাড়ি আদিবাসী মেয়েদের দিকে এবং আরো বহু নৃ-গোষ্ঠির দিকে৷ তারা পারে কিভাবে? সহজ ব্যপার আর সেটা হলো গাইতে গাইতে গায়েন৷ আমরাতো মেয়েদের গর্ভ হতে ভাগ করে ফেলি, দোলনায় খেলনা আলাদা করে প্রথমে চোখ মারি, খেলা আলাদা করে তারপর চরিত্র মারি, বাহির আলাদা করে মারি মনের পুরোটাই৷ ফলে শিশু হতেই নারী হয়ে উঠে মন থেকে অনুর্বর ও মন মরা৷ ভয়ের উপরে থাকে জীবন৷ নইলে শক্তি দেখা যেত৷ অনুর্বর মন নিয়ে বেড়ে উঠেও যখন বিশ্ব জয় করে ঘরে ফেরে খেলাধুলায়, জ্ঞানে, গুনে-মানে, বুদ্ধিতে, শক্তিতে তখন এতকালের আধিপত্যের নায়কদের একটু লজ্জাও করেনা?

কমেন্টে গিয়ে দেখনলাম নারীর পক্ষ নিলো বলে একজনের প্রোপাইল চেক করে কভারে পেলো আসাদ নূরের মুক্তির দাবীর ছবি৷ ব্যস শুরু হলো গালাগাল, আবার করছে ফাঁসির দাবী কত নোংরামি তুলে৷ এই এরা কখনো তাকিয়ে দেখেনা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজী বাপ মেয়েকে ধর্ষণ করেছে ক্রমাগত আট বছর৷ নাকি আধুনিকতার নামে সে মেয়েটা নিজে ধর্ষিতা হলো? মাদ্রাসায় সাত বছরের ছাত্রী থেকে মাদ্রাসার শিক্ষিকা পর্যন্ত ধর্ষণ হলো, নাকি আধুনিকতার নামে সেই সাত বছরের শিশু মেয়ে আর ম্যাডাম ধর্ষিতা হলো!! মসজিদের ভেতরে ইমামের কাছে কিশোরী ধর্ষিতা হলো, নাকি তাও আধুনিকতা সে কিশোরির? ছোট ছোট মাদ্রাসার ছাত্রকে ধর্ষণ করে হুজুর, নাকি সেটা ঐ ছোট্ট বাচ্চাগুলোর আধুনিকতা? পাঁচ বছরের পূজাতো আছেই, এবার পনের মাসের শিশু ধর্ষণ জনকন্ঠ পত্রিকার খবর, লেখা হয়নি শুধু পনের মাসের শিশুটি আধুনিকতার নামে নিজে ধর্ষিত হলো!! তখন ফাঁসির দাবী থাকে কই??

যে বাংলাদেশে একটি মা'কে বলতে হয়, বাবারে একজন একজন করে আসো! আমার মেয়েটা ছোট৷ সেখানে পুরুষের স্বাভাবিক আর নারীর পাব্লিক প্যালেজে সিগারেট কেনো? নারী পাব্লিক প্যালেজে কিছু যে খাবে সেটাও অসামাজিক, নোংরামি, আধুনিকতার নামে৷ নষ্টাতো হবেই....

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঙালী ফকির চাষী
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
Offline
Last seen: 7 ঘন্টা 10 min ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 29, 2017 - 2:02পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর