নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • আলমগীর কবির
  • মিঠুন বিশ্বাস

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

তিনটি কোরআন আয়াত যা প্রতিটি নারীর জানা উচিৎ



ডেভিড উড হল একজন আমেরিকান খ্রীষ্টান প্রচারক যিনি মূলত মুসলমাদের কাছেই খ্রীষ্টধর্ম প্রচার করেন, ইউটিউবে তার কমপক্ষে ৬০০ টি ভিডিও আছে যার প্রায় সবিই ইসলাম নিয়ে, যার মোট দর্শক সংখ্যা ৪ কোটির উপর, ডেভিড উড যুক্তরাষ্ট্রের ফোর্ডহাম বিশ্ববিদ্যলয় থেকে দর্শনে ডক্টরেট ডিগ্রি নেন। ইসলাম নিয়ে তার অনেক ভিডিওর একটি হল Three Quran Verses Every Woman Should Know

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন
আমি সে ভিডিওটির অনুবাদ করে দিলাম মূল ভিডিওটি দেয়া থাকবে প্রয়োজনে চেক করে দেখতে পারেন।
---------------

২০০৯ সালে অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কো অপারেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট এর করা একটি গবেষনায় তারা দেখায় যে নারীদের প্রতি বৈষম্য করা প্রর্থম ১২টি রাষ্ট্রের ১১টিই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ।

মজার বিষয় হচ্ছে পশ্চিম বিশ্বে যে সকল ব্যক্তি ইসলাম ধর্ম প্রচার করে তারা সবাই এটা বেশ জোর গলায় বলে ইসলাম হচ্ছে নারীদের সাম্য ও নারী অধিকারের ধর্ম। এদের কেউ কেউ তো দাবি করে মুহাম্মদ হল নারীবাদী,, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ নারীবাদী । ‍এখন কেন এই মুসলিম প্রচারকরা এ রকম একটি প্রত্যকটি মিথ্যা প্রচার করছে?

তারা এটা করে কারণ তারা জানে যে মানুষ সাধারণত ইসলামের বিষয়ে জানে না তাই তারা যা খুশি বলতে পারে কারন তাদের মিথ্যা ধরবার মতো কেউ নেই। আমার মতে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রগুলোর নারী বৈষম্য কমানোর উপায় হচ্ছে ঐধরনের মানুষ তৈরি করা যারা ইসলাম সম্পর্কে মিথ্যা তথ্যগুলো ধরতে পারবে এবং আসল সমস্যার প্রতি দৃষ্টিপাত করতে পারবে । এই কথা মাথায় রেখে আমি পেশ করছি তিনটি সূরা যা প্রতিটি নারীর জানা উচিৎ ।

৪ নম্বর হচ্ছে সবাই কমেন্ট বক্সে প্রশ্ন করবে ডেভিড তুমি সূরা ৪ এর ৩, সূরা ৪ এর ২৪. সূরা ৬৫, এর ৪ আর, পুরো ৩৩ সূরা নিয়ে বলছো না কেন? তাদের পূর্ব বলে রাখি আমি জানি কোরানের নারীদের হীন করে আনেক স্থানেই বলা আছে, কিন্তু সবগুলো একসাথে দেয়া সম্ভব না তাতে আনেক সময় লাগবে তাই আমি তিনটি আয়াত নির্বাচন করেছি যা মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রে নারীদের বৈশম্যের শিকার হবার কারন।

প্রর্থম,

সূরা ২ আয়াত ২৮২,, সুরা ২ এর ২৮২ হচ্ছে বেশ বড় একটি আয়াত যা চুক্তি নিয়ে আলচনা করে, এবং এ মাঝে বেশ আর্কষনিয় অংশ আছে সেটি হচ্ছে,

দুজন পুরুষকে সাক্ষী করবে, যদি দুজন পুরুষ না হয়, তবে নিজেদের পছন্দ মত একজন পুরুষ ও দুজন মহিলাকে (সাক্ষী করে নেবে)। ঐ সাক্ষীদের মধ্য থেকে একজন যদি ভুলে যায়, তবে অপর জন তা স্মরণ করিয়ে দিবে।

যদি দুজন নারী না পাওয়া যায় তাহলে একজন পুরুষ ও দুজন নারীর কথা বলা হয়েছে। এখান থেকেই আমরা ইসলামি প্রথা পই যে নারীর সাক্ষ্য পুরুষের অর্ধেক, এমনটা হবার কারন কি ?

সহিহ বুখারী :: খন্ড ১ :: অধ্যায় ৬ :: হাদিস ৩০১

সা’ঈদ ইব্ন আবূ মারয়াম (র) ......... আবূ সা’ঈদ খুদরী (রা) থেকে বর্ণিত, একবার ঈদুল আযহা বা ঈদুল ফিতরের সালাত আদায়ের জন্য রাসূলুল্লাহ্ (সা) ঈদগাহের দিকে যাচ্ছিলেন। তিনি মহিলাদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় বললেনঃ হে মহিলা সমাজ! তোমরা সাদকা করতে থাক। কারন আমি দেখেছি জাহান্নামের অধিবাসীদের মধ্যে তোমরাই অধিক। তাঁরা আরয করলেনঃ কী কারনে, ইয়া রাসূলুল্লাহ্? তিনি বললেনঃ তোমরা অধিক পরিমাণে অভিশাপ দিয়ে থাক আর স্বামীর না-শোকরী করে থাক। বুদ্ধি ও দীনের ব্যাপারে ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও একজন সদাসতর্ক ব্যক্তির বুদ্ধি হরণে তোমাদের চাইতে পারদর্শী আমি আর কাউকে দেখিনি। তাঁরা বললেনঃ আমাদের দীন ও বুদ্ধির ত্রুটি কোথায়, ইয়া রাসূলুল্লাহ্! একজন মহিলার সাক্ষ্য কি একজন পুরুষের সাক্ষের অর্ধেক নয় ( কোরান- ২: ২৮২)? তাঁরা উত্তর দিলেন, ‘হ্যাঁ’। তখন তিনি বললেনঃ এ হচ্ছে তাদের বুদ্ধির ত্রুটি। আর হায়য অবস্থায় তারা কি সালাত ও সিয়াম থেকে বিরত থাকে না? তাঁরা বললেন, ‘হাঁ’। তিনি বললেনঃ এ হচ্ছে তাদের দীনের ত্রুটি।

নারীদের সাক্ষ্য পুরুষের অর্ধেক কারন নারীরা স্বল্প বুদ্ধি সম্পন্ন। এই সব শিক্ষার সাথে অন্যান্য শিক্ষা যেমন যৌন অপরাধ প্রমানের জন্য চারজন সাক্ষর প্রয়োজনিয়তা, যা নারিদের জন্য ধর্ষনের অভিযোগ প্রমাণ করা, প্রায় অসম্ভব হয়ে। নিয়র্য়ার্ক টাইমের রিপোর্ট অনুযায়ী ,পাকিস্তানে ধর্ষনের অভিযোগ কারি নারীদের অর্ধক নারীর বিরুদ্ধে বিবাহবহিভূত যৌনতার অভিযোগ আনা হয়।

দ্বিতীয়,

সূসা, ২ আয়াত ২২৩, তোমাদের স্ত্রীরিা হলো তোমাদের জন্য শস্য ক্ষেত্র। তোমরা যেভাবে েইচ্ছা তেদেরকে ব্যবহার কর। আর নিজেদের জন্য আগামী দিনের ব্যবস্থা কর এবং আল্লাহকে ভয় করতে থাকা। আর নিশ্চিতভাবে জেনে রাখ যে আল্লাহর সাথে তোমাদেরকে সাক্ষাত করতেই হবে। আর যারা ঈমান এনেছে তাদেরকে সুসংবাদ জানিয়ে দাও।

আমরা এখন আর ক্ষেত্র শব্দটি এখন আর তেমন ব্যবহার করি না,, ক্ষেএ হচ্ছে জমি যা চাষাবাদ করা হয়। কোরান বলে স্ত্রী হল পুরুষের জন্য ক্ষেত্র, যা পুরুষ যেভাবে ইচ্ছা ব্যবহার করতে পারবে ।

সুনানে আবু দাউদ এর রেফারেন্স অনুযায়ী এই আয়াতের ঐতিহাসিক পটভূমি হচ্ছে , যখন মুহাম্মদ তার অনুসারীরা মক্কা ছেড়ে মদিনা আসে তখন তাদের কেউ কেউ মদিনার নারীদেরকে বিবাহ করে সেখানকার নারীরা পিছন দিক থেকে সঙ্গম করতে রাজি ছিলনা, একজন নারী তার স্বামীকে বলল যে সে যদি এভাবে সঙ্গম করতে চায় তাহলে তাকে সে ধারেকাছে আসতে দিবে না,

সুনানে আবু দাউদ, ২১৫৮/২১৫৯ এটি আপনি ডিসক্রিপশন বক্সে লিঙ্ক হিসেবে পাবেন। ক্রয়েই গোষ্ঠির লোকরা তাদের স্ত্রীদের সাথে, সমান ও পিছন উভয় দিক থেকে সঙ্গম করতে অভস্ত ছিল। ‍যখন মুসলমানরা মদিনায় এলো তাদের একজন একটি স্থানিও নারীকে বিবাহ করলো এবং সামন ও পিছন উভয় দিকে সঙ্গম করলো স্ত্রী সেটি অপছন্দ করলো এবং বললো আমরা সবসময় শুধু একুদিক থেকে সঙ্গম করতেই অভস্ত, সেভাবেই করো অথবা আমার কাছ থেকে দূরে থাক. এই কথা ছড়িয়ে পড়লো এবং আল্লাহুর নবীর কানে গেল, তখন সর্বশক্তিমান আল্লাহ কোরানের এই সূরাটি নাজিল করলেন,

তোমাদের স্ত্রীরা হলো তোমাদের জন্য শস্য ক্ষেত্র। তোমরা যেভাবে ইচ্ছা তাদেরকে ব্যবহার কর। আর নিজেদের জন্য আগামী দিনের ব্যবস্থা কর এবং আল্লাহকে ভয় করতে থাক। আর নিশ্চিতভাবে জেনে রাখ যে, আল্লাহর সাথে তোমাদেরকে সাক্ষাত করতেই হবে। আর যারা ঈমান এনেছে তাদেরকে সুসংবাদ জানিয়ে দাও।

এখন একজন নারী বললো যে আমি পিছন দিক থেকে সঙ্গম করবো না, আর আল্লা কি করলেন তার স্বামীকে বললেন তোমাদের স্ত্রীরা হলো তোমাদের জন্য শস্য ক্ষেত্র। তোমরা যেভাবে ইচ্ছা তাদেরকে ব্যবহার কর। মুহাম্মদ নিশ্চিত ভাবেই এই আয়াতটা গুরুত্বের সাথেই নিয়ে ছিল কারন আমরা যানি মুহাম্মদ বলেছে যদি কোন স্বামী তার স্ত্রীর সাথে সঙ্গম করতে চায় তাহলে স্ত্রীর উচিৎ হবে তার হাতের কাজ ফেলে রেখে তার ডাকে সারা দেয়া,, সুনন ইবনে মাজাহ ১৮৫৩ মুহাম্মদ বলেছেন, কোন স্ত্রী আল্লাহর প্রতি তার কর্তব্য পালন করতে পারে না যতক্ষন না সে তার স্বামীর প্রতি তার দায়িত্ব পালন করছে, যদি কোন স্বামী তার স্ত্রীকে সঙ্গমের জন্য বলে তখন সিই স্ত্রীর উচিৎ হবে তাতে সারা দেয়া, যদি সে তার উটের পোষাকে থাকে তবুও ।

জামিয়া তা মদি ১১৬০ মুহাম্মদ আরো বলে, যদি স্বামীি স্ত্রীকে ডাকে স্ত্রীর তাতে সারা দেয়া উচিৎ যদি সে চুলোয় রান্নারত থাকে তবুও।

তৃতীয়,

সব স্ত্রী মুহাম্মদের চাওয়া বা আল্লাহুর চাওয়া আনুযায়ি ব্যবহার করে না এরকম স্ত্রীর ক্ষেত্রে স্বামী কি করবে ? আল্লাহু তার উত্তর দিচ্ছে সূরা ৪ এর ৩৪ নম্বর আয়াতে,

"পুরুষেরা নারীদের অভিভাবক৷ কারণ, আল্লাহ তাদের একের ওপর অপরকে শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছেন এবং পুরুষেরা নিজের ধন-সম্পদ থেকে ব্যয় করে ৷ সতী-সাধ্বী স্ত্রীরা অনুগত এবং বিনম্র ৷ স্বামীর অনুপস্থিতিতে তারা তাঁর অধিকার ও গোপন বিষয় রক্ষা করে৷ আল্লাহই গোপনীয় বিষয় গোপন রাখেন৷ যদি স্ত্রীদের অবাধ্যতার আশংকা কর তবে প্রথমে তাদের সৎ উপদেশ দাও ৷ এরপর তাদের শয্যা থেকে পৃথক কর এবং তারপরও অনুগত না হলে তাদেরকে শাসন কর৷ এরপর যদি তারা তোমাদের অনুগত হয়, তবে তাদের সাথে কর্কশ আচরণ করো না৷ নিশ্চয়ই আল্লাহ সমু্ন্নত-মহীয়ান ৷

যদি আপনার স্ত্রী আপনার অনুগত না হয়, তাকে উপদেশ দিন, তার বিছানা ত্যাগ করুন, তাতেও কাজ না হলে প্রহার করুন, আমদের কি অবাক হওয়া উচিৎ যে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের গবেষণা অনুযায়ী আফগানিস্তানে ৮৫% নারী শারিরিক, মানুষিক বা যৌন নির্যাতনের ‍শিকার হন,

এবং ৬০% বেশি একাধিক ধরনের নির্যাতনের শিকার হন,

আল্লাহু আর মুহাম্মদের মতে, নারীরা হলস্বল্প বুদ্ধি সম্পন্ন, তারা হল স্বামীর ইচ্ছেমতো ব্যবহার করবার ক্ষেত, এবং নারীদের তাদের স্বামীর ‍যৌন চাহিদা মেটাতে বাধ্য থকতে হবে। যারা এগুলো করবে না তাদের প্রহারের মাধ্যমে বাধ্য করতে হবে। অনেক গবেষনায় এইসব শিক্ষার প্রভাব কতটা তা সামনে আনে, তবুও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক, ও মুসলিমরা বলে যে এসব নারী বৈষম্য নারীদের উপড় ‍নির্যাতনের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই,, কিন্তু ইসলাম প্রচারকদের দুরভাগ্য যে এই বৈশম্য ও অত্যাচার গুলো মুহাম্মদের সময়ে ঘটতো,

সহি আল ভুকারি,, ৫৮২৫, মুহাম্মদের শিশু বধু আয়শা দেখে যে একজন মুসলিম নারীকে এতটা মারাত্বক ভাবে প্রহার করা হয়েছে যে তার ত্বক সবুজ রুপ ধারন করেছে, এবং আয়শা যখন তাকে মুহাম্মদের কাছে নিয়ে গেল, এবং বললো আমি কেন নারীদেরকে মুসলিম নারীদের মতো অত্যাচারিত হতে দেখেনি, দেখুন এই নারীটির ত্বক তার কাপড়ের তুলুনায় সবুজ হয়ে গেছে,, এটা হচ্ছে আয়শা মুহাম্মদের প্রিয় স্ত্রী মুসলিম উম্মাহর মা, তার বকতব্য, মুসলিম নারীরা পৌত্তলিক নারীদের তুলনায়, বেশি অত্যাচারিত হচ্ছে। এখন কেন মুসলিম নারীরা পৌত্তলিক নারীদের তুলুনায় অধিক অত্যাচারিত হচ্ছিল? আপনি যদি আশা করে থাকেন মুহাম্মদ ঐ অত্যাচারী স্বমীকে শাস্তি দিবে, তাহলে আপনি এতক্ষন আমার কথা শোনেননি, মুহাম্মদ বরং ঐ নারীকেই খারাপ স্ত্রী বলে আখ্যা দিয়েছে, সুতরাং মুসলিম নারীরা মুহাম্মদের সময় থেকেই অত্যাচারিত, ১৪০০ পরে পরিস্থিতি পরির্বতিত হয়নি, কেন পরির্বতিত হয়নি কারন আনেক মুসলিম সমাজ মুহাম্মদের সময়কার মুসলিম সমাজকে তাদের আর্দশ মনে করে, তারা কোরান ও মুহাম্মদের ‍শিক্ষাকে অনুসরনিয় বলে মনে করে, আমরা যদি এরকম অবস্থার পরির্বতন দেখতে চাই তাহলে আমাদের কোরানের ও মুহাম্মদের শিক্ষার সাথে সংঘাৎ করতে হবে, তাই এই তিনটি আয়াত সম্পর্কে শিখুন বন্ধুদের কাছে সেয়ার করুন।

Comments

মুহম্মদ কবীর সরকার এর ছবি
 

উল্টো বুঝাই নাস্তিকতা।

kabir

 
মাইকেল অপু মন্ডল এর ছবি
 

বাংলা পড়তে পাড়েন তো লেখাটি ডেভিড উডের ভিডিওর অনুবাদ যিনি খ্রীষ্টান।

 
মুহম্মদ কবীর সরকার এর ছবি
 

উল্টো বুঝাই নাস্তিকতা।

kabir

 
পার্থিব এর ছবি
 

মাইকেল অপু মন্ডল, আপনাদের খৃষ্টান আর ইহূদী মেয়েদের নিয়ে আগে চিন্তা করুন। তাদের অবস্থা খুবই করুন। তারা টুইটারে #Metoo হ্যাশট্যাগ খুলে প্রতিদিনই তাদের উপর যৌন নির্যাতনের বর্ননা দিচ্ছে। এই তালিকায় আছেন আপনাদের নায়িকা, রাজনীতিবিদ, বাবসায়ী থেকে সকল পেশার নারী। আপনারা দিনকে দিন নারীদের সস্তা যৌন পুতুলে পরিনত করছেন। যা আপনাদের সিনেমা, পত্র-পত্রিকা , ইন্টার্নেটে চোখ বুলালেই বুঝা যায়।

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে পৃথিবীতে মেয়েদেরই ইসলাম গ্রহনের হার সবচেয়ে বেশী। ইসলামে নারী আর পুরুষকে সমান মর্যাদা দেয়া হয়েছে। মুহাম্মদ সা এর ১৩ জন স্ত্রীর সাথেই চমতকার সম্পর্ক ছিল । কেউই তাকে ছেড়ে যায় নি। সারা জীবন মুহাম্মদ সা এর আদর্শ প্রচার করেছেন তাঁর স্ত্রী গন।

অথচ আপনারা! আপনাদের অভিজিত রায়ের প্রথম স্ত্রী আত্নহত্যা করেছিল, রাজীব হায়দারের স্ত্রী পরকীয়াইয় অতিষ্ট হয়ে রাজীবকে তালাক দিয়েছিল, তসলিমা নাসরিনের সংসার বাসর রাতেই ভেংগে গিয়েছিল, আপনাদের আসাদ নূর নারী নির্যাতনের দায়ে এখন জেল খাটছে।

কি অদ্ভুত এক আদর্শের অনুসারী আপনারা!

 
মাইকেল অপু মন্ডল এর ছবি
 

গাঁজা সেবন বাদ দিন এই লেখার মনতব্য করতে এসে ইসলাম নারী পুরুষের সমান মর্জদা দিয়েছে দাবী করা গাঁজা সেবনের লক্ষন।

 
  mrh এর ছবি
 

মাইকেল অপু আপনারা নারী কত মর্জদা দিয়েছেন তা porn site দেখলে বুজাযায়।।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মাইকেল অপু মন্ডল
মাইকেল অপু মন্ডল এর ছবি
Offline
Last seen: 3 months 2 weeks ago
Joined: বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 2, 2017 - 4:17অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর