নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মুফতি বিশ্বাস মন্ডল
  • বেহুলার ভেলা
  • কুমকুম কুল

নতুন যাত্রী

  • নিনজা
  • মোঃ মোফাজ্জল হোসেন
  • আমজনতা আমজনতা
  • কুমকুম কুল
  • কথা নীল
  • নীল পত্র
  • দুর্জয় দাশ গুপ্ত
  • ফিরোজ মাহমুদ
  • মানিরুজ্জামান
  • সুবর্না ব্যানার্জী

আপনি এখানে

আওয়ামীলীগের হেফাজতপ্রীতির কারণ এবং এর প্রতিকার


আওয়ামীলীগের হেফাজতপ্রীতির কারণ এবং এর প্রতিকার
সাইয়িদ রফিকুল হক

আওয়ামীলীগের জন্ম হয়েছে ১৯৪৯ সালের ২৩-এ জুন। ১৭৫৭ সালের ২৩-এ জুন বাংলার স্বাধীনতাসূর্য অস্তমিত হয়েছিলো নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতনের মধ্য দিয়ে—মীরজাফর-লর্ড ক্লাইভগংদের হাতে। আবার, বাংলার এই স্বাধীনতা অস্তমিত হয় ১৯৪৭ সালের ১৪ই আগস্ট পাকিস্তানপ্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে—কুচক্রী জিন্না ও পাকিস্তানের দালালগোষ্ঠী মুসলিম-লীগারদের হাতে। তাই, আওয়ামীলীগের জন্ম হয়েছিলো বাংলার স্বাধীনতাপুনরুদ্ধারের জন্য। এর আগেই জন্ম হয় ছাত্রলীগের—১৯৪৮ সালের ৪ঠা জানুআরি। আওয়ামীলীগের জন্মের কিছুকাল আগে ভাষাআন্দোলনের প্রেক্ষাপটে যে ছাত্রলীগের জন্ম হয়েছিলো—তার একক নেতৃত্বে ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আর আওয়ামীলীগপ্রতিষ্ঠায়ও ছিল তাঁর বিরাট অবদান।

বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া ‘আওয়ামীলীগ’ কখনও কারও সঙ্গে আপস করেনি। বঙ্গবন্ধু ছিলেন অসাম্প্রদায়িক, আপসহীন ও মুক্তবুদ্ধিসম্পন্ন রাজনৈতিক নেতা। তাঁর কাছে মানুষের চেয়ে ধর্ম কখনও বড় হয়ে দেখা দেয়নি। তিনি বাংলাদেশে ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের প্রবক্তা ও প্রতিষ্ঠাতা। তিনি কখনও রাজনৈতিক স্বার্থে কিংবা ব্যক্তিগত ইচ্ছার কারণে দেশ ও জাতির স্বার্থবিরোধী কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আপস করেননি। বাংলাদেশের স্বাধীনতাসংগ্রামের প্রশ্নে তিনি তাঁর রাজনৈতিক গুরু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর আদর্শ থেকেও দূরে সরে দাঁড়িয়েছেন। রাজনৈতিক দল হিসাবে আওয়ামীলীগকে সম্পূর্ণ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় গড়ে তুলতে তাঁরই প্রচেষ্টায় সেদিনের ‘আওয়ামী মুসলিম লীগ’ থেকে ১৯৫৬ সালে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে ‘আওয়ামীলীগ’ গড়ে তোলেন। এই কারণে দলের প্রবীণ নেতা মাওলানা ভাসানীর সঙ্গে তাঁর মতপার্থক্য দেখা দেয়। কিন্তু তিনি কাউকে পরোয়া করেননি। একসময় ভাসানী আওয়ামীলীগ-ত্যাগ করে ‘ন্যাপ’ (ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি) গড়ে তোলেন। এতেও বঙ্গবন্ধু সামান্য বিচলিত হননি। তিনি দেশের স্বার্থে আর মুক্তিযুদ্ধের প্রয়োজনে ভিন্নমতাদর্শী কমরেড মনি সিংহের সঙ্গে বৈঠক ও সমঝোতা করেছেন। কিন্তু পাকিস্তানের প্রতি যার সামান্য অনুকম্পা আছে—তিনি তাদের কাউকে পরোয়া করেননি। তিনি দুই-চারটা-ভোটের জন্য কারও সঙ্গে সামান্যতম সমঝোতার চেষ্টাও করেননি। আজ দুঃখ লাগে বাংলাদেশআওয়ামীলীগের চেহারা দেখে।

ষাট-সত্তরের দশকে আওয়ামীলীগ করতেন একদল দেশপ্রেমিক শিক্ষিত, তরুণ ও উদ্যমী মানুষেরা। আর এঁদের সকলের পড়ালেখাবিষয়ক ডিগ্রী বা শিক্ষাগত-যোগ্যতা ছিল কমপক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েশন পর্যন্ত। এঁরা সবাই ছিলেন পড়ুয়া ও ধীমান। এঁরা রাজনীতির পাশাপাশি প্রচুর পড়াশুনা করে সময় কাটাতেন। আর এঁদের প্রতিভা ছিল ঈর্ষণীয়। এঁদের মনুষ্যত্ব ও মানবতাবোধ ছিল সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য। এঁরা ছিলেন সত্যিকারের দেশদরদী-মানবতার সৈনিক।

আজ সেই আওয়ামীলীগে ঢুকেছে কিছু অর্থলোভী নরপিশাচ ও আবর্জনা। এরা সীমাহীন লোভী বলেই রাজনীতি করে শুধু এমপি-মন্ত্রী-পাতিমন্ত্রী হতে চায়। আর এরা যোগ্যনেতা কিংবা যোগ্যকর্মী হওয়ার চেয়ে অতিসহজে ও অতিদ্রুত আওয়ামীলীগ ও এর যেকোনো অঙ্গসংগঠনের বড়-বড় পদগুলো অনায়াসে দখল করে নিচ্ছে। এই চক্রটি আবার ধর্মবিশ্বাসে পাকিস্তানীভাবধারার অপআদর্শে বলীয়ান ও ওহাবী-সালাফী মতাদর্শী। আর এরা কওমীমাদ্রাসার হুজুরপন্থী।
আওয়ামীলীগের অন্যতম প্রভাবশালী সদস্য হিসাবে পরিচিত সালমান এফ রহমান একজন সালাফী- ওহাবী। আজ শুধু একজন সালমান নয়—আজ আওয়ামীলীগের চারিদিকে ঘিরে রয়েছে সালাফীচক্র। আর এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে—বসুন্ধরা-গ্রুপের আকবার সোবহান শাহ আলমগং; বর্তমান স্বরাষ্ট্র-পাতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল (তার জ্যেষ্ঠ্পুত্র সাফি মোদ্দাসের খান জ্যোতি একটা সেমি-জঙ্গি); আওয়ামীলীগের গুলশান-এলাকার বর্তমান এমপি একেএম রহমতউল্লাহ; ইসলামিক ফাউন্ডেশনের হেফাজতপন্থী বর্তমান ডিজি (মহাপরিচালক) সামীম মোহাম্মদ আফজাল; নারায়ণগঞ্জের সংসদ-সদস্য শামীম ওসমানগং; সাবেক পাতিমন্ত্রী ও এমপি জাহাঙ্গীর কবির নানকসহ আওয়ামীলীগের প্রথম সারির আরও শতাধিক নেতা, এমপি, মন্ত্রী, পাতিমন্ত্রী। এদের ধর্মবিশ্বাস ওহাবীঅপআদর্শের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে এরা সবসময় কওমীমাদ্রাসাগুলোকে অর্থসহায়তা দিয়ে আসছে। এরা ওহাবীআদর্শের পতাকাতলে সমবেত হয়েছে বলে আজ তারা ‘আওয়ামীলীগে’র চেয়ে ‘হেফাজতে শয়তানে’র আমির শাহ আহমেদ শফীকে বেশি ভালোবাসে। এরাই শেখ হাসিনাকে বর্তমানে ঘিরে রেখেছে—আর তাকে বোঝাচ্ছে হেফাজতিদের সঙ্গে আপস করে চললে আওয়ামীলীগের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হবে! এই চক্রটি কোনোদিন আওয়ামীলীগকে ভালোবাসেনি। আর এদের বেশিরভাগই বহিরাগত ও স্বার্থান্বেষী যোগদান-পার্টির সক্রিয়-ব্যবসায়ীচক্র।

আওয়ামীলীগের জেলা-কমিটি’র একশ্রেণীর সদস্য ও মধ্যম সারির নেতা-নামধারী অনেক দুর্বৃত্তও আজ ওহাবী-সালাফী-মতাদর্শী। এরা দেশের বিভিন্নস্থানে আজ কওমীমাদ্রাসাসহ বিবিধ মাদ্রাসাস্থাপনে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে। আর এই পাতিহুজুরদের সর্বপ্রকার আশ্রয়প্রশ্রয়ও দিচ্ছে। এরা মূলত আজ জাতির জনকের আদর্শ থেকে একেবারে দূরে সরে শুধু নিজেদের স্বার্থপরতা ও ধান্দাবাজি নিয়ে ব্যস্ত। আর এই চক্রটির সীমাহীন লোভের কারণেই বাংলাদেশে কওমীমাদ্রাসাগুলো ও এর পাতিহুজুররা উত্থানের সুযোগ পেয়েছে।

আওয়ামীলীগের ভিতরে ঘাপটিমেরে থাকা সুযোগসন্ধানী ওহাবী-সালাফী-কওমী-অপআদর্শের এইসব জঞ্জাল অর্থলোভী-স্বার্থপর। এরা নিজেরা লুটপাটে ও ব্যবসার নামে সীমাহীন চৌর্যবৃত্তিতে লিপ্ত। আর সবসময় নিজেদের ভোগদখলে ব্যস্ত। আর তাই, এরা পরকালে দোজখের আজাব থেকে বাঁচার জন্য বেহেশতের সার্টিফিকেট-বিক্রেতা পাতিহুজুরদের খুশি করতে দেশের স্থানে-স্থানে প্রতিষ্ঠা করছে কওমীমাদ্রাসাসহ বিবিধ মাদ্রাসা। এই ভণ্ডচক্র দেশ ও জাতির সীমাহীন ক্ষতি করছে। আর এদের সঙ্গে সবসময় তালমিলিয়ে চলছে ‘ওলামালীগ’ নামক একটি অর্থলিপ্সু ও তোষামোদকারী দুষ্টচক্র।

প্রতিকার:
আওয়ামীলীগকে নিজের প্রয়োজনে এই দুষ্টচক্রকে দেশের সর্বস্তরের কমিটি থেকে অতিদ্রুত অপসারণ করতে হবে। এরা আওয়ামীলীগের ভিতরে ঘাপটিমেরে থাকা একটি চিহ্নিত-শয়তানচক্র। আর এদের একমাত্র লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কর্মসূচি হলো—ছলে-বলে-কলে-কৌশলে আওয়ামীলীগের ভিতরে থেকে যেকোনোভাবে একটি পদ কিংবা এমপি-মন্ত্রীত্ব বাগিয়ে নেওয়া। আর সমাজে-রাষ্ট্রে লোকদেখানো ভালোমানুষি দেখিয়ে শুধু নিজের স্বার্থহাসিল করা। তাই, আজ-এক্ষুনি আওয়ামীলীগ থেকে এদের জুতাপেটাসহকারে বের করে দিতে হবে। আর গড়ে তুলতে হবে অসাম্প্রদায়িক-ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশের জন্য ‘সেই আওয়ামীলীগ’।

সাইয়িদ রফিকুল হক
মিরপুর, ঢাকা, বাংলাদেশ।
২১/০৪/২০১৭

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সাইয়িদ রফিকুল হক
সাইয়িদ রফিকুল হক এর ছবি
Offline
Last seen: 16 ঘন্টা 14 min ago
Joined: রবিবার, জানুয়ারী 3, 2016 - 7:20পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর