নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মুফতি বিশ্বাস মন্ডল
  • বেহুলার ভেলা
  • কুমকুম কুল

নতুন যাত্রী

  • নিনজা
  • মোঃ মোফাজ্জল হোসেন
  • আমজনতা আমজনতা
  • কুমকুম কুল
  • কথা নীল
  • নীল পত্র
  • দুর্জয় দাশ গুপ্ত
  • ফিরোজ মাহমুদ
  • মানিরুজ্জামান
  • সুবর্না ব্যানার্জী

আপনি এখানে

ধর্ম টিকে আছে অসৎ ব্যক্তিদের দয়া। মসজিদ মন্দির চলে অসৎ ব্যক্তিদের দানের টাকায়।


নারায়নগঞ্জের সাংস্কৃতিসেবী রফিউল রাব্বি একটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের ২৫ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে নারায়নগঞ্জ কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে তাঁর বক্তব্যে বলেছিলেন; যদি বাংলার মানুষ জানতো সংবিধান বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম দিয়ে শুরু হবে, দেশ হবে সাম্প্রদায়িকতার দেশ, তবে ৩০ লাখ শহীদদের কেউ মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতো না।’ সাংস্কৃতিসেবী রফিউল রাব্বির এই কথাগুলো নাকি মুসলমানদের অনুভূতিকে আহত করেছে! এজন্য রফিউলের বিরুদ্ধে নারায়নগঞ্জ জেলার হেফাজত ইসলামের আমীর মাওলানা ফেরদাউসুর রহমান বাদী হয়ে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে ৫৭ ধারায় মামলা করেছেন। বুঝেন এবার ইসলাম ধর্মের অবস্থা কত্তটা নড়বড়ে যে শুকনা পাতার মত সামান্য বাতাসেও অনুভুতির লুঙ্গি খুলে যায়।

মুসলমানদের কাছে প্রশ্ন; আপনারা যখন শুনলেন ফোটো এডিটিং করে কাবা শরীফের উপর শিবের মূর্তি বসিয়েছে রসরাজ। তখন আপনাদের ধর্মীয়ানুভূতিতে আঘাত লেগে গেলো! উত্তেজিত হয়ে ছেলেটাকে ইচ্ছা মত পিটিয়ে পুলিশে দিলেন! বিনা অপরাধে ছেলেটা দীর্ঘদিন জেল খেটেছে! আল্লাহু আকবর ধ্বনি দিয়ে হিন্দুদের ঘরবাড়ি লুট করলেন! বাড়িঘর-মন্দির-মূর্তি ভেঙে আগুনে পুড়িয়ে দিলেন! আপনাদের নির্মমতায় অনেক হিন্দু রাগে, ক্ষোভে, ঘেন্নায় ও আতঙ্কে এই দেশ ছেড়েছেন। কিন্তু আপনারা এরকম বিভৎস বর্বরতা চালানোর আগে একটি বারের জন্যেও ভাবেননি, রসরাজ সত্যিই কী ধর্ম অবমাননা করেছেন কীনা ? অশিক্ষিত রসরাজের যোগ্যতায় ফোটো এডিটিং করা সম্ভব কীনা ? না। আপনারা এরকম কোন চিন্তা ভাবনা করেননি। শুধুমাত্র জিহাদি জোশে হায়নাদের মত ঝাপিয়ে পড়লেন হিন্দুদের ওপর। আর যখন আসল সত্য সবার সামনে আসলো। আওয়ামী লীগের নেতা নির্দেশে জাহাঙ্গীর আলম নামের একজন মুসলিমই ফোটো এডিটিং করে কাবার উপর শিব মূর্তি বসিয়েছে। তখন আপনাদের জিহাদি জোশ আর ধর্মীয়ানুভূতি পোতায়া গেছে। কোন মুসলমানই আর আল্লাহু আকবর বলে জাহাঙ্গীর বা আওয়ামী লীগের নেতা ওপর ঝাপিয়ে পড়েননি। তাদের বাড়িঘর লুট, ভাঙচুর বা আগুন দিয়ে পুড়িয়েও দেয়নি।

এই তো বেশ কয়েক দিন আগে কুমিল্লা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতির নির্দেশে দাউদকান্দি উপজেলার সুন্দলপুর ইউনিয়নের ভাগলপুর গ্রামের হিন্দুদের মন্দিরের পাশে একটি মক্তবে একটা নয় দুইটা নয় ১৬ টি কোরআন শরীফের উপর পায়খানা করেছে হাবিবুর রহমান। কই তখন আপনাদের কথিত অনুভূতিতে আঘাত লেগেছে এরকম কথা বলতে তো শুনি নাই ? কেউ তো বিএনপির সহ-সভাপতি বা হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ৫৭ ধারায় মামলাও করলেন না ? এতোগুলো কোরআনে হাগার পরও কোন মুসলমানের ধর্মীয়ানুভূতি আহত হতে দেখলাম না ! আল্লাহু আকবর বলে কোন সহী মুসলিম হাবিবুর রহমান বা বিএনপির নেতার উপর ঝাপিয়ে পড়েনি বা তাদের বাড়িঘরে আগুন দেয়নি বা লুট, ভাংচুরও করেনি অনুভূতিবাজ মুসলিমেরা। এটা কেমন বালের ধর্মীয়ানুভূতি আপনাদের ?

রফিউল রাব্বির কথাগুলো কি মিথ্যা? একটি অসাম্প্রদায়িক ও ধর্ম নিরপেক্ষ বাংলাদেশের জন্যইতো বাঙালি মুক্তিযুদ্ধ করেছিল। পাকিস্তানীবাহিনী ও জামাতবাহিনী যুদ্ধ করেছিল ইসলাম রক্ষার জন্য আর বাঙালি যুদ্ধ করেছিল একটি অসাম্প্রদায়িক জাতির জন্য। ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রের জন্যে যে বাঙালি যুদ্ধ করেনি তার সাক্ষী মুক্তিযুদ্ধের মূল চার নীতি।

নারায়ণগঞ্জে মেধাবী ছাত্র তানভীর মোহাম্মদ ত্বকীকে হত্যা করেছিল শেখ হাসিনার আশীর্বাদে রিষ্টপুষ্ট হওয়া কুখ্যাত সন্ত্রাসী ও পেশাদার খুনি শামীম ওসমানের ভাতিজা আজমেরী ওসমান। ছেলে হত্যার বিচারের দাবিতে বিভিন্ন স্থানে আয়োজিত সভায় শামীম ওসমান ও তার খুনী ভাতিজা আজমেরী ওসমানের শাস্তি দাবিও করে আসছিলেন রফিউল রাব্বি।

ছেলে ত্বকীকে হত্যার পর এবার রফিউল রাব্বির বিরুদ্ধে মাঠে নামলেন আওয়ামী লীগ এমপি কুখ্যাত সন্ত্রাসী ও পেশাদার খুনি শামীম ওসমান। শামীম ওসমানের মত এমন একজন কুখ্যাত সন্ত্রাসী ও পেশাদার খুনিও এখন ইসলাম রক্ষায় মাঠে নেমেছে। নাস্তিকদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছে। নাস্তিকদের জন্য তার চোখের ইশারাই যথেষ্ট। তিনি ওমরের মতো তরবারি নিয়ে নাস্তিকদের মাথা থেকে গলাটা আলাদা করে দিবেন। আরো কত হুমকি আর হুঁশিয়ারি। আজকাল খুনী, বদমাশরাও ইসলাম রক্ষায় জিহাদের ডাক দেয় মসজিদ থেকে! আশ্চর্য হবার কিছু নাই। ধর্ম টিকে আছে অসৎ ব্যক্তিদের দয়া। মসজিদ মন্দির চলে অসৎ ব্যক্তিদের দানের টাকায়।

শামীম ওসমান ঠিক মত নামাজ পড়ে কীনা আমার সন্দেহ। মূলত শামীম ওসমান এখানে ধর্মের মোড়ক ব্যবহার করেছেন। শামীম ওসমান ব্যক্তিগত শত্রুতার জের ধরে ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাতের অজুহাতে আইনী জটিলতায় ফাঁদে ফেলছে রফিউল রাব্বিকে। হেফাজতের মত একটি সাম্প্রদায়িক গোষ্টিকে সাথে নিয়ে খেলা শুরু করেছেন রাব্বির বিরুদ্ধে। বর্তমানে নির্লজ্বের মতো আওয়ামীলীগ এই খেলায় মেতে উঠেছে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্যে। একদিন এই খেলার শিকার আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরাও হবেন, এতে কোন সন্দেহ নাই। মনে রাখবেন একটা আঙুল অন্যের দিকে তাক করলে, বাকি চারটা আঙুল কিন্তু নিজের দিকেই আসে।

আচ্ছা জনাব ওসমান সাহেব রফিউল রাব্বি যে কথা বলেছে। এরকম কথা তো আওয়ামীলীগের আরো বড় বড় বাঘা বাঘা নেতানেত্রীরাও ইতিপূর্বে অনেক বার বলেছিল। অনেক দিন আগে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছিলেন; সুযোগ পেলেই সংবিধান থেকে 'রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম' তুলে দেওয়া হবে। সাজেদা চৌ: বলেছিলেন; ক্ষমতায় গেলে ধর্মের ছায়াটুকুও মুছে ফেলা হবে। প্রয়াত সুরঞ্জিত বাবু বলেছিলেন; ক্ষমতায় গেলে সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম বাদ দিবেন। শেখ হাসিনাও বলেছিলেন। অনেক নেতানেত্রীরা বলেছিলেন মসজিদ মাদ্রাসা জঙ্গি উৎপাদনে কারখানা। এরকম অনেক নেতানেত্রীর নামই বলা যাবে। তখন আপনার কথিক ধর্মীয় অনুভূতি কই ছিলো ? নাকি বিলাই মেরে পীর সাজতে চান!

আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ধর্মের মোড়ক ব্যবহার করা শিখে গেছে। যেই শফি হুজুর নারীদের তেঁতুল সম্বোধন করেছিল। শেখ হাসিনা নিজে এই হেফাজত ও শফিকে নিয়ে কত কুটুকথা বলেছিল। আজ সেই হেফাজত ও শফিকে শেখ হাসিনা গণভবনে এনে তেঁতুলের শরবত খাওয়াচ্ছে। আওয়ামীলীগের চেতনা বড়োই অদ্ভুত!!

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সজল মোহন
সজল মোহন এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 20 ঘন্টা ago
Joined: সোমবার, ডিসেম্বর 26, 2016 - 8:16পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর