নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 0 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

নতুন যাত্রী

  • আবুল কালাম
  • ইমরান আহমেদ সৈকত
  • উন্মাদ কবি
  • রাহাত মাকসুদ
  • শাহরিয়ার জাহিদ...
  • অপূর্ব দাশ
  • এল্লেন সাইফুল
  • বাপ্পি হালদার
  • রমাকান্ত রায়
  • আবুল খায়ের

আপনি এখানে

পাকিস্তানী প্রেতাত্মা হেফাজত ও ওলামালীগের দাবি মানার জন্যই কি এদেশ স্বাধীন হয়েছিল?


লেডি অব জাস্টিসের প্রতীক গ্রীক দেবী থেমিস। আমার জানামতে কালো চক্ষু আবৃত থেমিসের এক হাতে দাঁড়িপাল্লা, আরেক হাতে তলোয়ার শোভিত মুর্তি প্রতিটি গনতান্ত্রিক দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয়ে সামনে আছে। কারণ থেমিসের চোখ বাঁধা এক হাতে দাঁড়িপাল্লা শোভিত ছোট মুর্তি বিচারালয়ে ন্যায় বিচারের প্রতীয়মান প্রতীক হিসেবে মানা হয়। আমি আইনের ছাত্র নই। তবে থেমিসের চোখে কালো কাপড় থাকার অর্থ আমার স্বাভাবিক জ্ঞাণ থেকে বুঝতে পারি। যাতে আইনের দৃষ্টি পক্ষপাত দুষ্টু না হয়, সেদিক থেকে থেমিসের চক্ষু কালো কাপড়ে ঢাকা। আরেকদিকে দাঁড়িপাল্লা থাকার অর্থ কি হতে পারে এটা যেকোনো সাধারন জ্ঞানের অধিকারী মানুষ বুঝতে পারে। দাঁড়িপাল্লা হল ন্যায় পরায়নরতার প্রতীক। যাতে বিচারের পাল্লা সমানে সমান থাকে। থেমিসের হাতের তলোয়ারকে আইনের শক্তির প্রয়োগ বলে ধরা হয়।

এখন কথা হল হেফাজত ইসলাম আর ওলামালীগ ঠিক কোন যুক্তিতে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সামনে থেকে ন্যায় বিচারের প্রতীক থেমিসের মুর্তি সরিয়ে ফেলার দাবী তোলে? মুর্তি ইসলামে হারাম বলে? হেফাজত ইসলাম ও ওলামালীগ এইও দাবী তোলে, গ্রীক দেবী থেমিসের মুর্তি এসব বিদেশী সংস্কৃতি। থেমিস হল রোমানদের ন্যায়-বিচারের দেবী। কিন্তু আমাদের ইসলামের নয়। তারা এই দাবীও তুলেছেন, এই দেশের কৃষ্টি- সংস্কৃতির সাথে বিচারালয়ের সামনে গ্রীক দেবী থেমিসের মুর্তি শোভা পায় না। বলি কি পাকিস্তানী প্রেতাত্মা হেফাজত ইসলামের এই স্পর্দা হলো কি করে? তাহলে তো তাদের সাথে সুর মিলিয়ে বলতে হয়, হেফাজতেরও ইসলামের পক্ষে একটি শব্দ আওয়াজ করার অধিকার নেই এদেশে। কারণ বঙ্গীয় কৃষ্টি-সংস্কৃতির সাথে বোরকা-হিজাব আর দাড়ি টুপির ইসলামি নিয়মনীতি এদেশে যায় না। ইসলাম, আল্লাহ, নবী, এগুলো তো আরবীয় ধর্ম-সংস্কৃতি তাই না? এসব তো আমাদের বঙ্গীয় না। থেমিসকে যদি বিদেশী সভ্যতার দেবী বলে বর্জন করা হয়, তাহলে এদেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, সংবিধানে বিছমিল্লাহি...... বর্জন করা নয় কেন? আরবীয় কোরাণ শিক্ষা মাদ্রাসায় বর্জন নয় কেন? তাহলে তো বলতে হয় আরব ধর্ম তথা ইসলাম ধর্ম পালনকারীদের এদেশে থাকার কোনো অধিকার নেই! তাদের আরবের ধর্ম পালন করার অধিকার নেই এদেশে! কারণ দেশটা বাঙালীর।

দেশটা পাকিস্তানীত্বের ইসলামিয় করাল গ্রাস থেকে মুক্ত হয়েছে এখনো অর্ধশত বছর হয়নি। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লক্ষ শহীদের ইতিহাস খুব বেশি দুরে নয়। বর্তমান সুবিধাবদী বুদ্ধিবেশ্যারা কি করে চুপ করে আছে দেখো! বাংলা একাডেমীর পরিচালকরা তো বিদেশী নোংরা ধর্মের অনুসারী ইসলামিস্টদের সামনে হাঁটু গেড়ে মাথা নুইয়ে ভৃতের মতো বসে আছে। দিন দিন সব ইসলামিস্টদের দখলে যাচ্ছে দেখেও। যদি মনে এতই যখন বাঙালীত্ব ছিল, তখন আবার পাকিস্তানীত্বের শাসন-ব্যবস্থার অনুসরণ কেন? রাষ্ট্র ব্যবস্থায় ইসলামকে প্রাধান্য কেন? আমি কথা বলছি তাদের, যারা গুটিকয়েক ইসলামি ঝান্ডাধারীদের বেহাইয়াপনা দেখেও নিরবে চুপ করে আছেন। যারা বিশেষ বিশেষ দিনে গর্ব করে বাঙালীয়ানার ফেরি করে বেড়ায় তাদের কথা বলছি।

২৩ বছরে পাকিস্তানী শাসকরা যা করে দেখাতে পারেনি, ৪৫ বছর ধরে বাঙালি বিশ্বাসঘাতক মুসলিম শাসকরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কর্মকান্ড তার দ্বিগুন করে দেখিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু থেকে জিয়া-এরশাদ, খালেদা থেকে হাসিনা, এরা সবাই নিজেকে ইসলামিক নেতা-নেত্রী প্রমান করার জন্য অকুন্ঠ চেষ্টা করে গেছেন। এখন দেশটা পাকিস্তানকে টপকে গিয়ে সৌদি আরব হবার অপেক্ষায় আছে। আজ মাদ্রাসা শিক্ষা থেকে প্রগতিশীল লেখকদের রচনা সরিয়ে ফেলা হলো, কাল স্কুলের পাঠ্যবই থেকে সরানো হল, তারপর বিশ্ববিদ্যালয়ের বই থেকে সরানোর দাবী উঠলো। এখন সুপ্রিম কোর্ট থেকে ন্যায় বিচারের প্রতীক থেমিসের মুর্তি সরানোর দাবী উঠল। এই দাবী মানা হয়ে হয়ে গেলে, এরপর আসবে অপরাজেয় বাংলার ভাস্কর্য উচ্ছেদ করতে। এরপর রাজু ভাস্কর্য! শহীদ মিনার, স্নৃতিশোধ এগুলো কি বাদ যাবে?

হেফাজত ইসলাম আর ওলামালীগের মুক্তিযুদ্ধ চেতনা বিরোধী দাবী মানার জন্য কি ৩০ লক্ষ মানুষ শহীদ হয়েছিল? দু লক্ষ মা-বোন ধর্ষিত হয়েছিল? এসব পাকিস্তানী প্রেতাত্নাদের দাবী মানার জন্য কি এদেশ স্বাধীন হয়েছিল?

মন্তব্যসমূহ

নতুন কমেন্ট যুক্ত করুন

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

Facebook comments

বোর্ডিং কার্ড

অপ্রিয় কথা
অপ্রিয় কথা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 ঘন্টা 29 min ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 23, 2016 - 8:15অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর