নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সুব্রত শুভ
  • রাহাত মুস্তাফিজ
  • জান্নাতুল নাইম শাওন
  • নুর নবী দুলাল
  • মূর্খ চাষা
  • জুলিয়াস সিজার
  • কিন্তু

নতুন যাত্রী

  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য
  • নেইমানুষ
  • পরাজিত শুভ

আপনি এখানে

খিলাফত বা Caliphate : একটি রাজনৈতিক ইতিহাস (দ্বিতীয় অংশ)


মহানবী (স) এর পরলোকগমনের পর শুরু হয় খিলাফত। খিলাফত বা Caliphate ( আরবি থেকে خلافة or khilāfa) ছিল, সরকারের ইসলামি রুপ যা মুসলিম বিশ্বের নেতৃত্ব এবং রাজনৈতিক একতার প্রতিনিধিত্ব করে। এই ধরণের শাসন ব্যবস্থার সরকার প্রধানকে খলিফা বলা হয়। ইসলাম ধর্মমতে বলা হয় বা "খলীফাতুল রাসূলুল্লাহ বা Successor of Messenger of God বা খলীফা"।

৬৩৭ খ্রিস্টাব্দ। জেরুজালেম।
রাশিদুন খলিফা উমর ইবনে খাত্তাব।

পায়ে হেঁটে জেরুজালেম প্রবেশ করলেন। সাথে একটু উট এবং তাতে একজন আরোহী। সবাই মনে করলেন উটের পিঠে যিনি তিনিই উমর। আরোহী লজ্জিত হয়ে বললেন, আমি নয়। নিচে যিনি আছেন তিনিই খলিফা। উপিস্থিত সবাই বিস্মিত হলেন। সবাই তাদের সাদরে গ্রহণ করলেন এবং উমরের হাতে জেরুজালেমের চাবি দিলেন সফ্রোনিয়াস।

উমরের স্মৃতি হিসেবে সেপালচার চার্চের পাশে "Masque of Umar" এর দেয়াল এই কথাটি লিপিবদ্ধ আছে-

"This is an assurance of peace and protection given by the servant of Allah Omar, Commander of the Believers to the people of Ilia' (Jerusalem). He gave them an assurance of protection for their lives, property, church and crosses as well as the sick and healthy and all its religious community.
Their churches shall not be occupied, demolished nor taken away wholly or in part. None of their crosses nor property shall be seized. They shall not be coerced in their religion nor shall any of them be injured. None of the Jews shall reside with them in Ilia'."
__ Umar ibn Al-Khattab
638 AD, Jerusalem

উমর ইবন আল- খাত্তাব (Umar ibn Al-Khattab) (৫৭৭-৬৪৪), ২য় রাশিদুন খলিফা। তাকে বলা হয় মুসলিমদের মধ্যে একজন বেস্ট, বিচক্ষণ স্ট্র্যাটেজিস্ট। আবু বকরের পর উমর হন খলিফা। তিনি কুরাইশ বংশের ছিলেন। উমর ইসলামী আইনের একজন অভিজ্ঞ আইনজ্ঞ ছিলেন। ন্যায়ের পক্ষাবলম্বন করার কারণে তাকে আল ফারুক (সত্য মিথ্যার পার্থক্যকারী) উপাধি দেওয়া হয়। আমিরুল মুমিনিন উপাধিটি সর্বপ্রথম তার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছে।

শাসন ব্যবস্থা সংস্কারের জন্য উমর ইতিহাসে প্রসিদ্ধ। আবু বকর আস সিদ্দিক এর খিলাফতকাল পর্যন্ত মূলত কোনো রাজ্য প্রতিষ্ঠা হয়নি। প্রকৃতপক্ষে উমর-ই প্রথম মুসলিম সাম্রাজ্য স্থাপন করে ইসলামের অনুশাসন বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নেন। উমরের সরকার এককেন্দ্রীক ব্যবস্থায় পরিচালিত হয়। এতে খলিফা ছিলেন সর্বোচ্চ রাজনৈতিক কর্তৃপক্ষ। পুরো সাম্রাজ্যকে কয়েকটি প্রদেশে বিভক্ত করা হয়। প্রদেশগুলো প্রাদেশিক গভর্নর বা ওয়ালি কর্তৃক শাসিত হত। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ওয়ালি প্রদেশের সেনাবাহিনীর প্রধান সেনাপতি হিসেবে কর্মরত থাকলেও কিছু প্রদেশে পৃথক সামরিক অফিসার থাকত। প্রতিটি নিয়োগ লিখিত আকারে দেওয়া হত। নিয়োগের সময় গভর্নরদের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হত। দায়িত্বগ্রহণের পর গভর্নররা জনতাকে প্রধান মসজিদে জড়ো করে তাদের সামনে নির্দেশনা পড়ে শোনাতেন।

কর্মকর্তাদের প্রতি উমরের সাধারণ নির্দেশনা ছিল :

"স্মরণ রেখ, আমি তোমাকে জনগণের উপর নির্দেশদাতা ও স্বেচ্ছাচার হিসেবে নিয়োগ দিই নি। আমি তোমাকে একজন নেতা হিসেবে পাঠিয়েছি যাতে জনগণ তোমার উদাহরণ অনুসরণ করতে পারে। মুসলিমদেরকে তাদের অধিকার প্রদান কর যাতে তারা অন্যায়ে পতিত না হয়। তাদের মুখের উপর নিজেদের দরজা বন্ধ কর না যাতে ক্ষমতাশালীরা দুর্বলদের ধ্বংস করতে না পারে। এবং নিজেকে তাদের চেয়ে উচ্চ মনে হয় এমন কোনো আচরণ কর না যা তাদের প্রতি স্বৈরাচারী শাসকরা করে থাকে।"

উমর ঠিক করেন জেরুজালেম দখলে নিবেন যেহেতু আশেপাশের সব বড় বড় নগরীগুলো যেমন: লাটকিয়া, দামেস্ক, কুফা, বাগদাদ, 'রাশিদুন খিলাফতে'র অধীনে যাচ্ছিল। আর তখনো জেরুজালেম ছিল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। জেরুজালেম তিন তিনিটা বড় ও মনোথেলিস্টিক ধর্মের তীর্থস্থান- ইসলাম, জুডাইজম এবং ক্রিশ্চান। ৬১৩ সালে ইহুদিদের হেরাক্লিয়াসের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের পর ৬১৪ সালে সাসানীয়রা জেরুজালেম দখল করে নেয় এবং এখানে ইহুদি স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠিত হয়। ৬২৯ সালে বাইজেন্টাইনরা পুনরায় শহর দখল করে নেয় ও গণহত্যা চালায়। ফলে ১৫ বছরের ইহুদি শাসনের অবসান হয়। রাশিদুন সেনাবাহিনী আবু উবাইদাহর নেতৃত্বে ৬৩৬ সালের নভেম্বরে জেরুজালেম অবরোধ করে।

জেরুজালেমের প্যাট্রিয়ার্ক ছিলেন বৃদ্ধ সেন্ট সফ্রোনিয়াস (St. Sophronius)। তার কোন সৈন্যবাহিনী ছিল না। তাই উমর তাকে সারেন্ডার করতে বলে। সফ্রোনিয়াস ছয় মাস পরে সারেন্ডার করতে চায় তবে শর্ত দেয় উমরকে নিজেই জেরুজালেম আসতে হবে তবেই তিনি আত্মসমর্পণ করবেন। ৬৩৮ সালে উমর একটা উট নিয়ে জেরুজালেমের পথে রওনা দেন, সাথে মাত্র একজন সঙ্গী নিয়ে যার নাম ছিল "আসলাম"। অর্ধেক রাস্তা উমর উটের পিঠে থাকেন। মাঝ পথে এসে উমর উটের পিঠ থেকে নামেন এবং আসলামকে উটের পিঠে উঠতে বলেন। উমর পায়ে হেঁটে জেরুজালেমে প্রবেশ করেন এবং জেরুজালেম "Rashidun Caliphate" এর অন্তর্ভুক্ত করেন। এবং অনেকদিন পর আবার মুসলিমরা জেরুজালেম এর ক্ষমতা পায়।

যখন উমর জেরুজালেম পৌছালেন তখন সফ্রোনিয়াস তাকে জেরুজালেমের চাবি দিয়ে দিলেন। উমর ঘুরে ঘুরে জেরুজালেম দেখছিলেন। সফ্রোনিয়াস তাকে সেপালচার চার্চে (জেরুজালেমে খ্রিশ্চিয়ানদের পবিত্র চার্চ) নামায পড়তে বলেন। তখন তাকে উমর মানা করে বলেন, "আমি যদি এখানে নামায পড়ি তবে বাকি মুসলিমরাও এখানে এসে নামায পড়া শুরু করবে। এবং এটা আপনাদের কাছ থেকে নিয়ে নিবে। আমি চাই এ জায়গাটা আপনাদেরই থাক।" উমর চার্চ থেকে বের হয়ে পাশেই একটা জায়গায় নামায পড়লেন। পড়ে সেখানে একটা মসজিদ বানানো হয়। তিনি সবার নিজ নিজ ধর্ম পালনের অধিকার এবং কোন চার্চ বা ক্রুশ না ভাঙ্গার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। শুধু কর দিতে বলেছিলেন অন্যান্য রাজ্যের মত।

মুসলিমদের পক্ষে খলিফা উমর এতে স্বাক্ষর করেন এবং খালিদ বিন ওয়ালিদ, আমর ইবনুল আস, আবদুর রহমান বিন আউফ ও মুয়াবিয়া মুসলিম পক্ষে চুক্তির স্বাক্ষী হন। ৬৩৭ সালের এপ্রিলের শেষের দিকে জেরুজালেম কাগজকলমে খলিফার কাছে আত্মসমর্পণ করে। ৫০০ বছরের নিপীড়নমূলক রোমান শাসনের পর এই প্রথম ইহুদিরা জেরুজালেম বসবাস ও উপাসনা করার জন্য পুনরায় অনুমতি পায়।

উপরে দেয়া উক্তিটা উমর জেরুজালেমে থাকাকালীন দিয়েছিলেন। এটার মাধ্যমে তিনি জেরুজালেমে সব ধর্মের অধিকার ও প্রার্থনা নিশ্চিত করেছিলেন। যদিও এটা একটা পলিটিক্যাল স্ট্র্যাটেজি ছিল। তবে দ্বিতীয় রাশিদুন খলীফা হিসেবে উমরের নামটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তিনিই মূলত রাশিদুন খিলাফতকে একটা রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে রূপ দিয়েছিলেন।

"আমির-উল-মুমেনিন,
তোমার স্মৃতি যে আযানের ধ্বনি জানে না মুয়াজ্জিন।
তকবির শুনি, শয্যা ছাড়িয়া চকিতে উঠিয়া বসি,
বাতায়নে চাই-উঠিয়াছে কি-রে গগনে মরুর শশী?
ও-আযান, ও কি পাপিয়ার ডাক, ও কি চকোরীর গান?
মুয়াজ্জিনের কন্ঠে ও কি ও তোমারি সে আহ্ববান?
__ উমর ফারুক
"কাজী নজরুল ইসলাম"

তথ্য: The Caliph; Foundation by Al-Jazeera (Documentary)
The Middle East History (The Covenant of Omar)
The lost Islamic History
উইকিপিডিয়া

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

জলের গান
জলের গান এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 14 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, নভেম্বর 1, 2013 - 4:15পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর