নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • বেহুলার ভেলা
  • গোলাপ মাহমুদ
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • মুফতি মাসুদ
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

ব্লগসমূহ

ভালোবাসা : অামার দৃষ্টিভঙ্গি -


পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত শব্দ 'অাই লাভ ইউ।' এর বিপরীতে অাই হেইট ইউ শব্দটি খুব কমই উচ্চারিত হয়।
তাইতো পৃথিবীতে অাজও ফুল ফোটে, পাখি গান গায়, সাগর মুক্তো ছড়ায়।

ভালোবাসা জগতের সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ মানবীয় গুণ। দুটি মন যখন ভালোবাসার মোহনায় মিলে যায় তখন তা সৃষ্টি করে পবিত্রতা, সৃজন করে মহাকাব্য।
প্রকৃতি অামাদেরকে শেখায় ভালোবাসতে। ভালোবাসা থেকেই হয় কাছে অাসা, অার কাছে অাসা থেকেই সূচনা হয় মহামিলনের, মহাকাব্যের।

কুরআন অনলি কুইক রেফারেন্স: (৪) ‘আরবি ভাষায়’ কুরআন কাদের জন্য?


আজ এই অক্টোবর ২০১৭ সালে বর্তমান পৃথিবীর প্রায় ৭৬০ কোটি জনসংখ্যার মাত্র ৪২ কোটি আরবি ভাষী, বাঁকি ৭১৮ কোটি (সাড়ে ৯৪ শতাংশ) অন্যান্য ভাষাভাষী মানুষ। মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে আরবি ভাষায়, যে ভাষাটি বর্তমান পৃথিবীর মাত্র সাড়ে পাঁচ শতাংশ লোক ব্যাবহার করেন। প্রশ্ন হলো 'আরবি ভাষায়' এই কুরআন কাদের জন্যে অবতীর্ণ? এটা কি শুধু আরবি ভাষাভাষী লোকদের জন্যে অবতীর্ণ? নাকি এই ভাষায় কুরআন সর্বকালের সকল মানুষদের জন্য অবতীর্ণ? এ বিষয়ে আল্লাহর রেফারেন্সে মুহাম্মদের বানী অত্যন্ত স্পষ্ট। আর তা হলো,

মুহাম্মদের ভাষায়: [1][2]

জীবন


মানুষের জীবন সুন্দরতম, প্রতিটি মুহুর্ত তার অমূল্য, প্রতিটি মুহূর্ত তার কিভাবে সদ্ব্যবহার করতে পারা যায় সেটাই তার প্রধান চিন্তা হওয়া উচিত ------
এটাই মনুষ্যত্ব.

------- লেনিন

"জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু" স্লোগানকে জাতীয় স্লোগান হিসাবে স্বীকৃতি দিন : বিএইচপি


"জয় বাংলা" সারাবিশ্ব কাঁপানো এক ঝাঁঝালো স্লোগান ৷ ১৯৭১ সালে এ স্লোগান বাঙালি জাতির হৃদয়ে শিহরণ জাগিয়েছিল ৷ বীর বাঙালির রক্তে কাপন ধরিয়ে দিত 'জয় বাংলা' স্লোগান ৷ 'জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু' স্লোগান মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশপ্রেম প্রকাশের প্রতীক ৷ ৭১-রে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের মাথিয় বন্ধুক ঠেকিয়ে বলতো-বল,'পাকিস্তান জিন্দাবাদ' ৷ এরকম মৃত্যুর মুখে দাড়িয়ে মুক্তিযোদ্ধারা বলেছিলেন, 'জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু' ৷ শুধুমাত্র 'জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু' স্লোগান দেওয়ার কারনে হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধাদের তাজাপ্রান বিসর্জন দিতে হয়েছিল ৷ এ স্লোগানকে কোনভাবে কোনো একটি দলের স্লোগান হতে পারে না ৷ এট

ছোটগল্প: পোস্টার


সবকিছু একটা সিস্টেমে চলছে। এমপি শুধু উপজেলা কমিটিতে নাক গলায়। তাও সব পোস্টের জন্য পারতপক্ষে না। উপজেলার সভাপতি এবং সম্পাদক ইউনিয়নগুলোতে কমিটি দেয়। এভাবে একটা বোঝাপড়া তারা করে নেয়। তাও কোন্দল বাধে মাঝে মাঝে উপজেলা এবং ইউনিয়নে, শহরে সমস্যা হয় ওয়ার্ডগুলোতে।

সহীহ মুসলমানের চেহারা (দ্বিতীয় পর্ব)


হাঁটতে-হাঁটতে ইসমাইল একসময় আরও বলে, “দোস্ত শোন্, আমার এই মামু শালার ব্যাটা কিন্তু আমলীগ আর কমুনিস্ট না কী জানি কী কয়—তাগরে দুইচক্ষে দেখতে পারে না। সে যদি তোর সামনে আমলীগরে গালিগালাজ করে তুই আবার কিছু কইস না কিন্তু! শালার ব্যাটা মনে অয় একাত্তুরে রাজাকারই আছিলো।”
তাইজুল হতাশ হয়ে বলে, “আচ্ছা। আর চল, কাছে গিয়ে দেহি লোকটা কীরহম মানুষ!”
প্রথম পর্বের লিংক: https://istishon.com/?q=node/27344

নারায়ে তাকবীর, আল্লাহুয়াকবার



ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করার ইচ্ছে কোনও কালেই ছিলনা বা থাকবে না, ধর্ম বিষয়টি সম্পূর্ণ মনস্তাত্ত্বিক বিশ্বাসের বিষয় যা নিয়ে অনেকেই খুব বেশী জানতেও চায় না পাছে আবার অনেক অজানা প্রশ্ন মনের কোনে ভিড় জমায়, নাস্তিকি চিন্তা ভাবনায় মনের অজান্তে শয়তান মাথায় চেপে বসলেই তো মুণ্ডটা হারাতে হবে।

জন্মেছি বলে জ্যোৎস্না দেখি


মৃত মানুষেরা মাটির নিচে চলে যায়
ক্রমাগত নিচের দিকে নামতে নামতে
একদিন খনিতে পৌঁছে যাবে দেহসার,
বায়োগ্যাস হয়ে যাবে--ঠোঁট, চোখ, স্তন
জীবাশ্ম জ্বালানি হয়ে ভবিষ্যৎ-কালে
ঊর্ধ্বমুখে আসবে তারা ভিন্ন পরিচয়ে।
প্রাচীন বৃক্ষের কাণ্ড-মূল-গুঁড়ি হয়েছে
পাথুরে কয়লা! আমার হৃদয় একদিন
পচে গলে সার হবে উদ্ভিদ-শিকড়ে;
সেদিনও সপ্তর্ষিমণ্ডল প্রশ্নচিহ্ন রেখে
প্রতিফলিত হবে কারো নয়নতারায়।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর