নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • বিকাশ দাস বাপ্পী
  • মুফতি মাসুদ
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সৈকত সমুদ্র
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • সাইয়িদ রফিকুল হক

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

ইসলামে জিহাদ, সন্ত্রাসবাদ এবং “ইহুদি-নাসারাদের ষড়যন্ত্র” খোঁজার কারণ ।


“মানতে হবে অথবা মরতে হবে” –এর সংক্ষিপ্ত নামই সন্ত্রাসবাদ । কখনো এই সন্ত্রাসবাদের সাইনবোর্ড থাকে ঈশ্বরের, কখনও বা জাতিগোষ্ঠির জাতীয়তার কখনওবা ব্যক্তি ইমেজের। কিন্তু সকল ক্ষেত্রেই আর্থিক লাভটাই মূখ্য ।

ব্যক্তি বা জাতিগোষ্ঠীর কারণে যে সন্ত্রাসবাদ বিশ্বে প্রচলিত ছিল তার সহজ সরল নাম ছিল সাম্রাজ্য বিস্তার । এতে করে সরাসরি দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে শুধু মাত্র রাজা ও সৈনিকদের কিন্তু ধর্মীয় বা জাতিগোষ্ঠীর নামে যে আধিপত্যবাদ চালু হয়েছে তার জন্য দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সকল স্তরের সাধারন জনতাকে ।

শুধু ধর্মীয় আধিপত্যবাদ ছাড়া অন্য সকল সন্ত্রাসবাদের মূল উদ্দেশ্যই থাকে অর্থনৈতিক নীতি নির্ভর । কিন্তু ধর্মের নামে যে সন্ত্রাসবাদ তার সাথে থাকে অর্থ ও সাধারনের জীবনের প্রতিটা সময়ের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া ।

পৃথিবীতে জাতি বা ব্যক্তি সন্ত্রাসবাদের সর্বশেষ নিদর্শন ২য় বিশ্বযুদ্ধ । কিন্তু ধর্মের নামে সন্ত্রাসবাদের জন্ম হাজার হাজার বছর আগে থেকেই যার সর্বশেষ নিদর্শন ইসলাম ।

২য় বিশ্বযুদ্ধের পরে “শক্তি যার ভূখণ্ড তার” এই নীতির অবসান ও দুর্বল জনগনের উন্নত জীবন গড়ার জন্য প্রতিষ্ঠা হয় জাতিসংঘের । জাতিসংঘের শর্তাবলী মানতে গিয়ে আর সে অর্থে সাম্রাজ্যবাদ প্রতিষ্ঠার রাস্তা না থাকায় শুরু হলো জ্ঞান-বিজ্ঞান দিয়ে অর্থনৈতিক দখল । কিন্তু ধর্মীয় সন্ত্রাসবাদের কোন পরিবর্তন হয় না । যার প্রথম সারিতেই আছে ইসলাম । ইসলামের জিহাদ নামের সন্ত্রাসবাদ ও সেই সন্ত্রাসবাদকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের যুদ্ধ না বলতে পেরে শেষে সাফাই স্বাক্ষী দেয় – ওটা ইহুদি নাসারাদের ষড়যন্ত্রের ফসল । কিন্তু কেন তাদেরকে দায়ী না করে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপায় ? সেটা জানতে হলে আবারও ফিরে দেখতে হবে ইসলামের ইতিহাস ।

মক্কায় একে অপরের প্রতি সালাম (শান্তি বর্ষণ ) দিয়ে ইসলামের শুরু করলো নবী মোহাম্মাদ । আল্লাহও শুরু করলেন ব্যক্তি কেন্দ্রিক “শান্তির” আয়াত দিয়ে –

তোমাদের কর্ম ও কর্মফল তোমাদের জন্যে এবং আমার কর্ম ও কর্মফল আমার জন্যে। [সুরা কাফিরূন: ৬

দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি বা বাধ্য-বাধকতা নেই। নিঃসন্দেহে হেদায়াত গোমরাহী থেকে পৃথক হয়ে গেছে। এখন যারা গোমরাহকারী `তাগুত'দেরকে মানবে না এবং আল্লাহতে বিশ্বাস স্থাপন করবে, সে ধারণ করে নিয়েছে সুদৃঢ় হাতল যা ভাংবার নয়। আর আল্লাহ সবই শুনেন এবং জানেন। সুরা বাকারা: ২৫৬।

কিন্তু শেষ করলেন নিজের জন্য শান্তি রেখে অন্যের প্রতি (তাঁকে যারা মানে নাই) অশান্তি বর্ষণ দিয়ে । সাথে সাথে আল্লাহও অন্যের ধংস কামনা করতে কিভাবে এগিয়ে এলেন দেখুন –

“আবু লাহাবের হস্তদ্বয় ধ্বংস হোক এবং ধ্বংস হোক সে নিজে, কোন কাজে আসেনি তার ধন-সম্পদ ও যা সে উপার্জন করেছে। সত্বরই সে প্রবেশ করবে লেলিহান অগ্নিতে,এবং তার স্ত্রীও-যে ইন্ধন বহন করে, তার গলদেশে খর্জুরের রশি নিয়ে।“ ( সুরা লাহাব ১-৫)

যে শুধু নিজেদের ভাল চায় কিন্তু সব সময় অন্যের অমংগল কামনা করে তাকে সভ্য সমাজের জন্য ক্ষতিকর হিসাবে চিহ্নিত করেছিল প্যাগন ধর্মাবলম্বী মক্কা বাসিরা । বিজ্ঞ আলেমগন সেই প্যাগনদেরকে বর্বর ও অসামাজীক বলেই চিহ্নিত করেছেন । ইসলামের এই ন্যায় নীতি বোধ কি বিচিত্র তাই না ? সত্যি সত্যিই কারা বর্বর সেটা এখন আপনারা চিহ্নিত করবেন আপনাদের জ্ঞান, বুদ্ধি ও বিবেক দিয়ে ।

দীর্ঘ সময়েও সুবিধা করতে না পেরে মূলত নিজেদের শান্তির জন্য অন্যদের জীবন অশান্তি দিয়ে পূর্ণ করার মানসে মক্কা থেকে পালিয়ে ইসলামের যাত্রা শুরু হলো মদিনার উদ্দেশ্যে । সংক্ষেপে যাকে হিজরত করা বলে ।

৬২২ খ্রীস্টাব্দে ২২ সেপ্টেম্বর সোমবার দিন মদিনার কেন্দ্রস্থলে পৌঁছার আগে প্রথমে কোবা নামক পল্লীতে নও মুসলিম বনি আমর ইবনে আওফের মেহমান হন যার সাহায্যে মোহাম্মদ এই মদিনায় আশ্রয় লাভ করেছিলেন । এখানে তিনি ১৪ দিন অবস্থান করেন। হজরত কুলসুম ইবনে হাদাম (রাঃ) নামক জনৈক প্রবীণ সাহাবির এক খণ্ড ভূমির ওপর সর্বপ্রথম মসজিদ নির্মিত হয়। কোবা পল্লীর এ মসজিদ খানাই ছিল ইসলামের ইতিহাসে প্রথম মসজিদ।
মসজিদে কোবার বৈশিষ্ট্য : - হজরত নবী করিম (সাঃ) নিয়মিত কোবার মসজিদ জিয়ারত করতেন এবং সাহাবায়ে কেরামকেও এ ব্যাপারে উত্সাহিত করতেন।
হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর বর্ণনা করেন, হজরত নবী কর নিয়মিতভাবে প্রতি শনিবার কোবার মসজিদে জিয়ারত করতেন। কখনও কোনো সরওয়ারীতে আরোহণ করে আবার কখনও বা হেঁটে যেতেন (বুখারি শরিফ ১ম খণ্ড, মুসলিম শরীফ ১ম খণ্ড)।অন্য এক হাদিসে রয়েছে, কোবার মসজিদে গিয়ে নামাজ আদায় করা একটি ওমরাহর সমতুল্য পুণ্যের কাজ (তিরমিযি শরিফ, ইবনে আবিশাইবা ২য় খণ্ড)।
মুহাম্মদ ইবনুল মুনকাদের বর্ণনা করেন যে, হজরত নবী করিম (সা.( প্রতি রমজানের ১৭ তারিখ কোবার মসজিদে তশরিফ আনতেন।(অধ্যাপক কে. আলী, পৃষ্ঠা-৫৩ )

এই মসজিদেই সর্ব প্রথম কৃতদাস থেকে মুক্তি পাওয়া বেলাল নামাজে ডাকার (আযান) জন্য স্বাক্ষ্য দিলো – “ আল্লাহ সর্ব শ্রেষ্ঠ, আল্লাহ ছাড়া আর কোন উপাস্য নাই, মোহাম্মদ আলালহর প্রেরিত রাসুল “। যার ধারাবাহিকতা আজও দিনে পাঁচ বার শুনতে হয় । বেলাল মোহাম্মদের কারণে মুক্তিলাভ করেছিল ফলে তার কাছে মোহাম্মদ নবী হইতেই পারে কিন্তু এখনও যারা তেমনই স্বাক্ষী দিচ্ছেন তাদের স্বাক্ষী দেওয়ার কারনটা দুর্বোদ্ধ ! আযানের পরের নবীর বেহেস্তের জন্য যে সুপারিশ ও আল্লাহর প্রতিশ্রুতির কথা মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য নবীর জান্নাত লাভের উদ্দেশ্যে দোয়া করা হয় সেটা কবে থেকে চালু তার সঠিক হিসাব জানা যায় না । কিন্তু দুর্ভাগ্য এই যে, যে নবীর সুপারিশে মুমিনরা জান্নাতে যাবে সেই নবীর জান্নাত প্রাপ্তির জন্যই দিনে ৫বার মুমিনদেরকেই সুপারিশ করতে হয় । আপসুস !!

এখানেই শুরু হলো যুদ্ধ করার জন্য সাহাবী নামে খ্যাত মুজাহিরদেরকে সংগঠিত ও উৎসাহিত করার কাজ । আর কাজে সর্বাগ্রে এগিয়ে এলেন আল্লাহ, নাজিল করলেন তার আয়াত –


“ তোমরা কি সেই দলের সাথে যুদ্ধ করবে না; যারা ভঙ্গ করেছে নিজেদের শপথ এবং সঙ্কল্প নিয়েছে রসূলকে বহিস্কারের? আর এরাই প্রথম তোমাদের সাথে বিবাদের সূত্রপাত করেছে। তোমরা কি তাদের ভয় কর? অথচ তোমাদের ভয়ের অধিকতর যোগ্য হলেন আল্লাহ, যদি তোমরা মুমিন হও।

যুদ্ধ কর ওদের সাথে, আল্লাহ তোমাদের হস্তে তাদের শাস্তি দেবেন। তাদের লাঞ্ছিত করবেন, তাদের বিরুদ্ধে তোমাদের জয়ী করবেন এবং মুসলমানদের অন্তরসমূহ শান্ত করবেন।

এবং তাদের মনের ক্ষোভ দূর করবেন। আর আল্লাহ যার প্রতি ইচ্ছা ক্ষমাশীল হবে, আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়। [সুরা তাওবা:১৩,১৪, ১৫]

হে নবী, আপনি মুসলমানগণকে উৎসাহিত করুন জেহাদের জন্য। তোমাদের মধ্যে যদি বিশ জন দৃঢ়পদ ব্যক্তি থাকে, তবে জয়ী হবে দু'শর মোকাবেলায়। আর যদি তোমাদের মধ্যে থাকে একশ লোক, তবে জয়ী হবে হাজার কাফেরের উপর থেকে তার কারণ ওরা জ্ঞানহীন।[সুরা আনফাল: ৬৫]

অর্থাৎ মক্কা বাসী প্যাগনদের চিরাচরিত ধর্মের বিরুদ্ধে হঠাত মোহাম্মদ নিজের নবী দাবী করে তাদের ধর্মকে মিথ্যা বলাটা কি মোহাম্মদের সাথে বিবাদের সূত্রপাত করা ? নাকি মোহাম্মদই হুদাই এক ধর্মের কথা বলে তাদের সাথে বিবাদের সৃস্টি করেছে ? এখন যদি কোন মসজিদে গিয়ে কেউ বলে এই ইসলাম ধর্ম ভুয়া , তাইলে সেই বিবাদের জন্য কে দায়ী হবে ? অথচ দেখুন আলালহ কাকে দায়ী করে ন্যায় বিচারক হলেন এবং এই মক্কা থেকে পালিয়ে আসা মুসলমানদের যুদ্ধে উৎসাহিত করতে আল্লাহ পাক নিজেই মুসলমানদের জয়ী হওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিলেন ।

কিন্তু আয়াত দিয়ে পরের ঘাড়ে বসে খেয়ে তো আর পেট ভরবে না তাই না ? কপর্দক শূন্য কোন কাজ না জানা মোহাম্মদ ও তার দলবল মদিনায় খাদ্য সংকটে পড়ায় পেশা হিসাবে বেছে নিলো কুরাইশদের বানিজ্য কাফেলায় ডাকাতি । সেই জন্য সংগের মক্কা থেকে সাথে আসা সাহাবীদের নিয়ে গঠিত হলো “মুজাহিদ” বাহিনী এবং স্থানীয় গরীব মদিনাবাসী নব্য মুসলিমদের নিয়ে গঠিত হলো “আনসার” বাহিনী । আল্লাহও তাদেরকে আয়াতের সাহায্যে নৈতিক ভাবে সাহায্য করলেন । ডাকাতির মত পেশাও ন্যায়ের পেশা হিসাবে ন্যায় বিচারক আল্লাহ অনুমোদন দিলেন –

“ সম্মানিত মাসই সম্মানিত মাসের বদলা। আর সম্মান রক্ষা করারও বদলা রয়েছে। বস্তুতঃ যারা তোমাদের উপর জবর দস্তি করেছে, তোমরা তাদের উপর জবরদস্তি কর, যেমন জবরদস্তি তারা করেছে তোমাদের উপর। আর তোমরা আল্লাহকে ভয় কর এবং জেনে রাখ, যারা পরহেযগার, আল্লাহ তাদের সাথে রয়েছেন। [সুরা বাকারা: ১৯৪]

তোমাদের কি ধারণা, তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে? অথচ আল্লাহ এখনও দেখেননি তোমাদের মধ্যে কারা জেহাদ করেছে এবং কারা ধৈর্য্যশীল। [সুরা ইমরান: ১৪২]

হে ঈমানদারগণ! তোমরা যদি কাফেরদের কথা শোন, তাহলে ওরা তোমাদেরকে পেছনে ফিরিয়ে দেবে, তাতে তোমরা ক্ষতির সম্মুখীণ হয়ে পড়বে।বরং আল্লাহ তোমাদের সাহায্যকারী, আর তাঁর সাহায্যই হচ্ছে উত্তম সাহায্য।[সুরা ইমরান: ১৪৯- ১৫০]

জিহাদের মাধ্যমে প্রতিশোধ নিতে সবাই প্রস্তুত কিন্তু গোল বাধালো ৪ মাসের সংযম প্রথা । সেই সময়ে মক্কা ও মদিনাবাসীরা বছরের ৪ টা মাসকে খুব সন্মান দিতো । ঐ ৪ মাস দন্দ্ব কলহ বিবাদ ও রক্তপাত থেকে তারা বিরত থাকতো কিন্তু এত দিন কি না খেয়ে থাকবে নওমুসলিমরা ? ঠিক সেই মূহুর্তেই ন্যায় বিচারক আল্লাহ আবার এগিয়ে এসে জিহাদকে যুক্তিযুক্ত করার জন্য তাঁর ন্যায় দন্ড নিয়ে । ধন সম্পদ পাওয়া ও জান্নাতের নিশ্চয়তার কেমন যুক্তি বুদ্ধি দিলেন দেখুন -

“সম্মানিত মাস সম্পর্কে তোমার কাছে জিজ্ঞেস করে যে, তাতে যুদ্ধ করা কেমন? বলে দাও এতে যুদ্ধ করা ভীষণ বড় পাপ। আর আল্লাহর পথে প্রতিবন্দ্বকতা সৃষ্টি করা এবং কুফরী করা, মসজিদে-হারা মের পথে বাধা দেয়া এবং সেখানকার অধিবাসীদেরকে বহিস্কার করা, আল্লাহর নিকট তার চেয়েও বড় পাপ। আর ধর্মের ব্যাপারে ফেতনা সৃষ্টি করা নরহত্যা অপেক্ষাও মহা পাপ। বস্তুতঃ তারা তো সর্বদাই তোমাদের সাথে যুদ্ধ করতে থাকবে, যাতে করে তোমাদিগকে দ্বীন থেকে ফিরিয়ে দিতে পারে যদি সম্ভব হয়। তোমাদের মধ্যে যারা নিজের দ্বীন থেকে ফিরে দাঁড়াবে এবং কাফের অবস্থায় মৃত্যুবরণ করবে, দুনিয়া ও আখেরাতে তাদের যাবতীয় আমল বিনষ্ট হয়ে যাবে। আর তারাই হলো দোযখবাসী। তাতে তারা চিরকাল বাস করবে”।[সুরা বাকারা: ২১৭]

“আর যারা ঈমান এনেছে, নিজেদের ঘর-বাড়ী ছেড়েছে এবং আল্লাহর রাহে জেহাদ করেছে এবং যারা তাদেরকে আশ্রয় দিয়েছে, সাহায্য-সহায়তা করেছে, তাঁরা হলো সত্যিকার মুসলমান। তাঁদের জন্যে রয়েছে, ক্ষমা ও সম্মানজনক রুযী”। [সুরা আনফাল: ৭৪]


“আল্লাহ তোমাদেরকে বিপুল পরিমাণ যুদ্ধলব্ধ সম্পদের ওয়াদা দিয়েছেন, যা তোমরা লাভ করবে। তিনি তা তোমাদের জন্যে ত্বরান্বিত করবেন "। (কোরান ৪৮:২০)

সুতরাং তোমরা খাও গনীমত হিসাবে তোমরা যে পরিচ্ছন্ন ও হালাল বস্তু অর্জন করেছ তা থেকে। আর আল্লাহকে ভয় করতে থাক। নিশ্চয়ই আল্লাহ ক্ষমাশীল, মেহেরবান। [সুরা আনফাল: ৬৯]

“তিনি তাদেরকে পথ প্রদর্শন করবেন এবং তাদের অবস্থা ভাল করবেন”। অতঃপর তিনি তাদেরকে জান্নাতে দাখিল করবেন, যা তাদেরকে জানিয়ে দিয়েছেন। কোরান ৪৭-৫,৬

হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহকে যথার্থভাবে ভয় কর এবং তোমরা আত্মসমর্পণকারী (মুসলিম ) না হয়ে কোনো অবস্থায় মৃত্যুবরণ করো না।(আলে ইমরান ১০২ )।

আললাহর পথে জিহাদে বের হলে তাকে জান্নাত কিংবা গণীমাতসহ নিজ বাসস্থানে ফিরিয়ে আনতে আল্লাহ যামিন হয়ে যান (বুখারী-৬৯৩৯)।

জানা যায় অনেকেই শহীদের মর্যাদা পেয়ে যুদ্ধের যায়গাতেই মারা গেছে বাসস্থানে ফিরতে পারে নাই । তাতে তাদের নিজ বাসস্থানে ফিরিয়ে আনার আল্লাহর যামিন হওয়াটাকে কেউ আল্লাহ ও নবীর মিথ্যা প্রতিশ্রুতি হিসাবে চিহ্নিত করার সাহস দেখিয়েছে কিনা তা জানা যায় নাই ।

অর্থাৎ ধর্মের বিষয়ে কোন ন্যায়, নীতি বিবেক নাই । সাথে লাভ হিসাবে থাকবে সন্মান জনক রুজি হিসাবে হালাল (?!) গনিমতের মাল ও জান্নাতের নিশ্চয়তা । আর কিছু লাগে ? শুরু হয়ে গেল কুরাইশদের কাফেলা আক্রমনের মাধ্যমে জিহাদী কার্যক্রম ও হালাল ভক্ষন । হালাল খেয়ে আস্তে আস্তে মুসলমানরা আর্থিক ভাবেও শক্তিশালী হওয়া শুরু করল সাথে সাথে বাড়লো মনোবল ।

এরই মধ্যে আল্লাহ নবীকে সর্বোচ্চ কমান্ডার হিসাবে তার কথা শোনার জন্য আয়াতের পর আয়াত নাজিল করে গেলেন এবং এসব যুদ্ধকে কিভাবে ইবাদতের মতই ফরজ হিসাবে ঘোসনা দিলেন দেখুন -

আল্লাহ ও তাঁর রসূল কোন কাজের আদেশ করলে কোন ঈমানদার পুরুষ ও ঈমানদার নারীর সে বিষয়ে ভিন্ন ক্ষমতা নেই যে, আল্লাহ ও তাঁর রসূলের আদেশ অমান্য করে সে প্রকাশ্য পথভ্রষ্ট তায় পতিত হয়। [সুরা আহযাব: ৩৬]

তোমাদের ওপর যুদ্ধ ফরজ করা হয়েছে, অথচ তা তোমাদের কাছে অপছন্দনীয়। পক্ষান্তরে তোমাদের কাছে হয়তো কোনো একটা বিষয় পছন্দসই নয়, অথচ তা তোমাদের জন্য কল্যাণকর । (সুরা আল বাকারাহ ২ : ২১৬)।

যারা আল্লাহর পথে শহীদ হয়, আল্লাহ কখনই তাদের কর্ম বিনষ্ট করবেন না। (কোরান ৪৭-৪ )

এরই মধ্যে জিহাদীরা যুদ্ধে বা ডাকাতিতে ভয়ে পলায়নকারী কাফিরদের বউ মেয়েদেরকেও পেইয়ে গেলো । ধন সম্পদ না হয় গনিমতের মালের মতই ভোগ করল কিন্তু অন্যের বউ মেয়েদেরকে কি করবে; বিব্রত হলেন জিহাদীরা । এ থেকে বুঝা যায় তৎকালীন সমাজ-ব্যবস্থাকে যে ইসলামে আইয়ামে জাহেলিয়াত বলা হতো সেটা সর্বৈব মিথ্যাচার । প্রমান দেখুন –

আবু সাইদ আল খুদরি(রাঃ)বলেছেন যে হুনায়েনের যুদ্ধকালে আল্লাহর রাসুল (দ) আওতাস গোত্রের বিরুদ্ধে একদল সৈন্য পাঠান। তারা তাদের মুখোমুখি হলো এবং তাদের সাথে যুদ্ধে অবতীর্ণ হলো। যুদ্ধে পরাজিত করার পর কিছু বন্দী তাদের হাতে আসল। রাসুলুল্লার কিছু সাহাবি ছিলেন যারা বন্দিনীদের সাথে সহবাস করতে বিরত থাকতে চাইলেন, কারণ তাদের স্বামীরা ছিল জীবিত কিন্তু বহু ঈশ্বরবাদী। সহি মুসলিমঃ বুক নং-৮, হাদিস নং-৩৪৩২

যাহোক, এক্ষেত্রেও বরাবরের মত সবার আগেই মহান ন্যায় বিচারক আল্লাহ পাক এগিয়ে এলেন বিবেককে ধংসকারী আয়াত নিয়ে দেখুন প্রমান –

“তোমাদের জন্যে অবৈধ করা হয়েছে নারীদের মধ্যে সধবাগণকে (অন্যের বিবাহিত স্ত্রীগণকেও); কিন্তু তোমাদের দক্ষিন হস্ত যাদের অধিকারী- আল্লাহ তোমাদের জন্যে তাদেরকে বৈধ করেছেন”।(সুরা ৪:২৮)

“মুশরিকদের স্ত্রী অথবা বন্দী ও মালিকানাভুক্ত দাসীদের ক্ষেত্রে আমাদের যৌনাঙ্গকে সংযত না রাখলে আমরা তিরস্কৃত হবে না”(কুরআন ২৩: ৫-৬)।

অর্থাৎ বল প্রয়োগের মাধ্যমে (ডান হাতের মাধ্যমে) প্রাপ্ত ধন সম্পদ ও বিধর্মি নারীকে ভোগ করা আল্লাহর দৃষ্টিতে হালাল বা বৈধ । অর্থাৎ বিবেক, ন্যায়, নীতি বিসর্জন দিয়ে শুরু হলো “জোর যার মুল্লুক তার” তত্ত্ব প্রতিষ্ঠার কাজ । এই বৈধ কাজের প্রশ্নে মহামানব মোহাম্মদও কোন রাখ ঢাক না করে নিজের মেয়ের জামাইকেও তিনি গনিমতের মালের ভাগ হিসাবে নারী সম্ভোগ করিয়ে কিভাবে নৈতিকতার এক নজির সৃস্টি করেছেন দেখুন অথচ তার উম্মতরাই মেয়েদের ছোট পোশাক দেখলেই অশ্লিল বলে ভুরু কুচকায় । জামাইয়ের গনিমতের মাল ভোগের হাদিস -

বুরায়দা বর্ণনা করলেন: রসুলুল্লাহ আলীকে খালেদের কাছে পাঠালেন খুমুস (যুদ্ধে লব্ধ মাল) নিয়ে আসার জন্যে। আমি আলীকে ঘৃণা করতাম। সে সময় আলী গোসলে ছিল((এক যুদ্ধ বন্দিনীর সাথে সহবাস করার পর ) । আমি খালেদকে বললাম: আপনি কি তাকে দেখলেন (অর্থাৎ আলীকে)? আমরা নবীজির কাছে পৌঁছিলে তাঁকে এ ব্যাপারে অবহিত করলাম। তিনি বললেন: “হে বুরায়দা, তুমি কি আলীকে ঘৃণা কর?” আমি বললাম: “জী হ্যাঁ”। তিনি বললেন: “তুমি তাকে ঘৃণা করছ, তবে সে তো ঐ খুমুস থেকে আরও বেশী পাবার যোগ্য”। সহিহ বোখারি, ভলুম ৫ বই ৫৯ হাদিস ৬৩৭ ।

একই সাথে ধন সম্পদ অন্যদিকে নিত্য নতুন সুন্দরী নারী সম্ভোগের ক্ষমতা পেলে জীবনে কি আর কিছুর অপূর্নতা থাকে ? এর চেয়ে শান্তির জীবন কি আর কিছু হতে পারে ? দরকার শুধু বিবেক বোধ বিসর্জন দেওয়া। অতএব শুরু হলো ইসলামের মাধ্যমে মুসলমানদের আর্থিক ও যৌন সমস্যার সমাধান, সাথে ইসলামকে শান্তির ধর্ম হিসাবে প্রচারের কাজ । লজ্জা ঢাকতে এই ডাকাতি গুলিকেই অবশ্য ইসলামী পন্ডিতগন যুদ্ধ হিসাবে চিহ্নিত করে নিজেদেরকে ঈমানদার ও বিবেকবান বলেই পরিচয়ের স্বাক্ষর রেখে গেছেন । তাই আজও তারা মুসলমানদের কাছে সন্মানিত । আশ্রয়ে থেকে আশ্রয় দাতাকে কিভাবে সমূলে উচ্ছেদ করে নিজে একজন আদর্শবান মহা মানব হন সেটার প্রমান আছে মদিনার প্রতি বর্গ ইঞ্চিতে । একটা নমুনা দেখুন -

মদিনায় আদিবাসি বনু নজির ও বনু কুরাইজা ইহুদি গোত্র ইয়েমেন থেকে এসে মদিনায় আশ্রয় নেওয়া আউস আর খাজরাজ দুই পৌত্তলিক গোত্র মিলেমিশেই এতকাল বসবাস করছিল যখনই আউস আর খাজরাজ ইসলামের দীক্ষা নিল এরপরই দীর্ঘদিনের প্রতিবেশি গোত্রকে তাড়িয়ে দিতে এদের একটুও বাঁধে নি। এদের পুরোপুরি প্রভাবিত করেছিল মুহম্মদের ইসলাম । মক্কায় প্রাক ইসলামের যুগে মুহম্মদের মুরিদদের আশ্রয় দিয়েছিলেন পার্শ্ববর্তী ইথিওপিয়ার খ্রিষ্টানরা। পরবর্তীতে এই ইথিওপিয়াও মুসলিমরা কব্জা করে । আমাদের ভারত বর্ষের পাকিস্তান ও আমাদের দেশের সংখ্যালঘুদের দিকে তাকালেই পুরাটা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় । সেই ১৪০০ বছর আগের তত্ত্ব আজও তারা মনে প্রানে পালন করে যাচ্ছে আর তার বিনিময়ে স্বপ্ন দেখছে ৭২টা হুরের ।

এভাবে প্ররোচিত করে ও বিভিন্ন কৌশলে ইহুদিদের মদিনায় আশ্রিতা হিসাবে মোহাম্মাদ মদিনাকে ইহুদি মুক্ত করে শতভাগ মুসলিম অঞ্চলে রূপান্তর করলেন “হয় মানো অথবা মরো” – এই নৈতিকতার উপরে ভিত্তি করে । ইহাকেই ইসলামী দাওয়াত বলে ।

ধার্মিক ইসলামী ইতিহাসবিদদের দ্বারা লিখিত নবী মুহাম্মদের জীবনীতে মদীনায় বসবাসকালীন তাঁর জীবনের শেষ ১০ বছরে নবী কর্তৃক পরিচালিত বা নির্দেশিত ৭০ থেকে ১০০টি ব্যর্থ বা সফল আক্রমণ, লুণ্ঠন অভিযান ও যুদ্ধের উল্লেখ পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১৭ থেকে ২৯টিতে তিনি ব্যক্তিগতভাবে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। নীচে নবীর পরিচালিত বা নির্দেশিত প্রধান প্রধান অভিযান ও যুদ্ধসমূহের একটি তালিকা দেওয়া হলো:-

৬২৩ সাল - ওয়াদ্দানের যুদ্ধ , ৬২৩ ” - সাফওয়ানের যুদ্ধ , ৬২৩ ” - দুল-আশিরের যুদ্ধ,
৬২৪ ” - নাখলার যুদ্ধ , ৬২৪ ” - বদরের যুদ্ধ , ৬২৪ ” - বানু সালিমের যুদ্ধ,
৬২৪ ” - ঈদ-উল-ফিতর ও যাকাত-উল-ফিতরের যুদ্ধ , ৬২৪ ” - বানু কাইনুকার যুদ্ধ,
৬২৪ ” - সাউইক-এর যুদ্ধ , ৬২৪ ” - ঘাতফানের যুদ্ধ , ৬২৪ ” - বাহরাইনের যুদ্ধ,
৬২৫ ” - ওহুদের যুদ্ধ , ৬২৫ ” - হুমরা-উল-আসাদের যুদ্ধ , ৬২৫ ” - বানু নাদিরের যুদ্ধ,
৬২৫ ” - ধাতুর-রিকার যুদ্ধ , ৬২৬ ” - বাদরু-উখরার যুদ্ধ , ৬২৬ ” - দুমাতুল-জান্দালের যুদ্ধ, ৬২৬ ” - বানু মুস্‌তালাক নিকাহ’র যুদ্ধ , ৬২৭ ” - খন্দকের যুদ্ধ ,
৬২৭ ” - আহজাব’এর যুদ্ধ , ৬২৭ ” - বানু কুরাইজার যুদ্ধ , ৬২৭ ” - বানু লাহিয়ানের যুদ্ধ,
৬২৭ ” - ঘাইবা’র যুদ্ধ , ৬২৭ ” - খাইবারের যুদ্ধ , ৬২৮ ” - হুদাইবিয়া অভিযান , ৬৩০ ” - মক্কা বিজয়, ৬৩০ ” - হুনসিনের যুদ্ধ , ৬৩০ ” - তাবুকের যুদ্ধ, ৬৩২ সালে নবী মুহাম্মদ মৃত্যুবরণ । এই মৃত্যুতে ইহুদি নারীর হাত ছিল বলে জানা যায় ।

নবী তো নাই, এবার কি হবে ? সেই সমস্যার সমাধানও কিন্তু ইসলামে পরিস্কার ভাবেই আছে । আসুন দেখি পরবর্তি খলিফা ইসলাম কিভাবে পালন করলেন -

যুগ যুগ ধরে ধর্ম পালনের রিতি নীতিই হলো আগের জনকে অনুসরন করা । এক্ষেত্রেও তার কোন ব্যত্যয় হলো না । ৬৩২ সালে নবী মুহাম্মদ মৃত্যুর পরে তাঁর শ্বশুর আবু বকর ইসলামী রাষ্ট্রের প্রথম খলীফা হন। উনি সেই একই আদর্শে আদর্শিত হওয়ার কারনে ইসলামের ধর্মীয় প্রসার ও আওতা সমপ্রসারণে নবীর দেখানো পথেই আক্রমণাত্মক যুদ্ধ অব্যাহত থাকে । অর্থাৎ সেই “সালাফি” প্রয়োগ দেখুন উনার সময়কার যুদ্ধের তালিকা –

৬৩৩ সালে - ওমান, হাদ্রামাউত, কাজিমা, ওয়ালাজা, উলেইস ও আনবারের যুদ্ধ
৬৩৪ সালে - বসরা, দামাস্কাস ও আজ্‌নাদিনের যুদ্ধ এবং খলীফা আবু বকর মারা যান ।
এই মৃত্যুতে ইহুদি নাসাদের হাত আছিল কিনা জানা যায় না ।

৬৩৪ সালে আবু বকর মারা যাওয়ার পরে নবীর অপর এক শ্বশুর ও সহচর ওমর আল-খাত্তাব দ্বিতীয় খলীফা হন। তার পরিচালনাধীনে ইসলামের ভূখণ্ড বিস্তারে যুদ্ধবিগ্রহ জোরদার হয়ে উঠে:
৬৩৪ সালে - নামারাক ও সাকাতিয়ার যুদ্ধ , ৬৩৫ সালে - সেতু (ব্রীজ), বুওয়াইব, দামাস্কাস ও ফাহ্‌ল-এর যুদ্ধ , ৬৩৬ সালে - ইয়ারমুক, কাদিসিয়া ও মাদাইনের যুদ্ধ
৬৩৭ সালে - জালুলার যুদ্ধ , ৬৩৮ সালে - ইয়ারমুকের যুদ্ধ, জেরুজালেম ও জাজিরা বিজয়, ৬৩৯ সালে - খুজইজিস্তান বিজয় ও মিসর আক্রমণ, ৬৪১ সালে - নিহাওয়ান্দ-এর যুদ্ধ, ৬৪২ সালে - পারস্যের রেই-এর যুদ্ধ, ৬৪৩ সালে - আজারবাইজান বিজয়, ৬৪৪ সালে - ফারস ও খারান বিজয় এবং খুন হন ।

এই খুনে ইহুদি নাসারা জড়িত ছিল না বলেই জানা যায় ।

খলীফা ওমর ইসলামী রাষ্ট্রের বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তিনি ৬৪৪ সালে খুন হলে নবীর এক জামাতা ও সহচর ওসমান পরবর্তী খলীফা হন এবং ইসলামের বিস্তারে একই ভাবে যুদ্ধ অব্যাহত থাকে:
৬৪৭ সালে - সাইপ্রাস দ্বীপ বিজয় , ৬৪৮ সালে - বাইজেনটাইনের বিরুদ্ধে অভিযান
৬৫১ সালে - বাইজেনটাইনের বিরুদ্ধে নৌযুদ্ধ, ৬৫৪ সালে - উত্তর আফ্রিকায় ছড়িয়ে পড়ে ইসলাম ।
খলীফা ওসমান খুন হন ৬৫৬ সালে।

এই খুনে ইহুদি নাসাদের ষড়যন্ত্র কেউ খুজে পায় নাই ।

৬৫৬ সালে খলীফা ওসমান খুন হওয়ার পরে নবীর কন্যা ফাতিমার স্বামী আলী পরবর্তী খলীফা হন। মুহাম্মদের মৃত্যুর দুই দশক পরবর্তী এ সময়ে আভ্যন্তরীণ মতবিরোধ ও দ্বন্দ্ব মুসলিম সমপ্রদায়কে দুর্দশাগ্রস- করে তোলে। এ সময় ইসলামের ভিতরে দলাদলি ও যুদ্ধ শুরু হয়, যেমন আলী ও নবীর স্ত্রী আয়েশার মধ্যে সংঘটিত ‘উটের যুদ্ধ’ এবং আলী ও মুয়াবিয়ার মধ্যে সংঘটিত সিফিনের যুদ্ধ। এর ফলে অমুসলিমদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ অনেকটা নিস্তেজ হয়ে যায়। খলীফা আলীর অধীনে অমুসলিমদের বিরুদ্ধে মাত্র দু’টি উল্লেখযোগ্য যুদ্ধ সংঘটিত হয়:
৬৫৮ সালে - নাহ্‌রাওয়ানের যুদ্ধ, ৬৫৯ সালে - মিসর বিজয়, ৬৬১ সালে বিষাক্ত ছুরির আঘাতে আলী খুন হন ।

এই খুনে ইহুদি নাসা মুক্ত অঞ্চলে তাদের চক্রান্ত থাকার প্রশ্ন আসে কি ?

আলীর খুন সঠিকভাবে পরিচালিত খলীফাদের রাজত্ব বা খলীফায়ে রাশেদীনের যুগের সমাপ্তি টানে। এরপর মুয়াবিয়ার নেতৃত্বে উমাইয়া বংশ ক্ষমতায় আসে এবং ইসলামী সাম্রাজ্যের বিজয়যুদ্ধ পুনরায় চাঙ্গা হয়ে উঠে:
৬৬২ সালে - মিসর ইসলামের শাসনাধীনে আসে, ৬৬৬ সালে - মুসলিমদের দ্বারা সিসিলি আক্রান্ত হয়, ৬৭৭ সালে - কনস্টান্টিনোপল অবরোধ, ৬৮৭ সালে - কুফার যুদ্ধ
৬৯১ সালে - দ্বার-উল-জালিক-এর যুদ্ধ, ৭০০ সালে উত্তর আফ্রিকায় সামরিক অভিযান,
৭০২ সালে - দ্বার-উল-জামিরার যুদ্ধ, ৭১১ সালে - জিব্রাল্টার আক্রমণ ও স্পেন বিজয়
৭১২ সালে - সিন্ধু বিজয় ,৭১৩ সালে - মুলতান বিজয় , ৭১৬ সালে - কনস্টান্টিনোপল আক্রমণ, ৭৩২ সালে - ফ্রান্সের টুর-এর যুদ্ধ, ৭৪০ সালে - নোবল-এর যুদ্ধ
৭৪১ সালে - উত্তর আফ্রিকার বাগদৌরার যুদ্ধ, ৭৪৪ সালে - আইন আল জুর-এর যুদ্ধ
৭৪৬ সালে - রূপার ঠুঠার যুদ্ধ, ৭৪৮ সালে - রেই’এর যুদ্ধ, ৭৪৯ সালে - ইসপাহান ও নিহাওয়ান্দ-এর যুদ্ধ, ৭৫০ সালে - জাব-এর যুদ্ধ, ৭৭২ সালে - উত্তর আফ্রিকার জানবী’র যুদ্ধ, ৭৭৭ সালে - স্পেনের সারাগোসার যুদ্ধ ।

এই এত এত যুদ্ধ কি ইহুদি নাসারা ষড়যন্ত্র করে লাগাইছে বলে এখনও আপনি মনে করছেন ? জিহাদ যদি ফরজ নাই হতো তাইলে কি ইসলাম আজ এই যায়গায় আসতে পারতো ? আপনার নিজের অস্তিত্ব থাকতো ?

৭১২ সালে - সিন্ধু বিজয় ও ৭১৩ সালে - মুলতান বিজয় করার পরেঅ তারা কিন্তু কোন দিনই ভারতীয় হয়ে উঠে নাই, তার প্রমান পাকিস্তান ।

ইসলামের প্রচার ও বিজয় তো দেখলাম । এবার আসুন দেখি আধুনিক সভ্যতা সন্ত্রাসবাদ হিসাবে কি বলে -

জাতিসংঘ ১৯৯৬ সালে ৫১/২১০ নং রেজুলেশনে জঙ্গিবাদের যে সংজ্ঞা নির্ধারন করেছে তা নিম্নরূপ:
"Criminal acts intended or calculated to provoke a state of terror in the general public, a group of persons or particular persons for political purposes are in any circumstance unjustifiable, whatever the considerations of a political, philosophical, ideological, racial, ethnic, religious or any other nature that may be invoked to justify them"
(সূত্র: https://en.wikipedia.org/wiki/Definitions_of_terrorism)
বাংলা অনুবাদ: সাধারন জনগনের মনে বা কোন গোত্রের মানুষদের মনে উদ্দেশ্যমূলকভাবে অপরাধমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে কোন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের উদ্দেশ্যে ভীতি সঞ্চার করা- এটা্ই সন্ত্রাসবাদ। এই ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডকে সঠিক প্রমান করতে এর পক্ষে যে কোন ধরনের রাজনৈতিক , দার্শনিক, আদর্শিক, জাতিগত, নৃতাত্ত্বিক, ধর্মীয় বা যে কোন ধরনের আদর্শ প্রচার করা হলেও সেটা অবৈধ ও অন্যায়।

উপরোক্ত আইন অনুযায়ী নিজের স্বার্থ সিদ্ধির জন্য আল্লাহ কোন রূপ ভীতি সৃস্টি করেছেন এমন কোন প্রমান আছে কিনা সেটা দেখি -

“ খুব শীঘ্রই আমি কাফেরদের মনে ভীতির সঞ্চার করবো। কারণ, ওরা আল্লাহর সাথে অংশীদার সাব্যস্ত করে যে সম্পর্কে কোন সনদ অবতীর্ণ করা হয়নি। আর ওদের ঠিকানা হলো দোযখের আগুন। বস্তুতঃ জালেমদের ঠিকানা অত্যন্ত নিকৃষ্ট। [সুরা ইমরান: ১৫১]

দেখলেন তো ? এবার কি বলবেন , এই আয়াত কি সন্ত্রাসবাদের জন্ম ঘর নয় ? এবার দেখুন নবী নিজেও কি সেই সন্ত্রাসবাদের গডফাদার কিনা যা আজও প্রতিটা মুসলমান তাদের অন্তরে লালন করে চলছে -

সহিহ বুখারী :: খন্ড ৪ :: অধ্যায় ৫২ :: হাদিস ২২০:

ইয়াহ্ইয়া ইব্ন বুকাইর (র)...............আবূ হুরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) বলেছেন, অল্প শব্দে ব্যাপক অর্থবোধক বাক্য বলার শক্তি সহ আমি প্রেরিত হয়েছি এবং শত্রুর মনে ভীতির সঞ্চারের মাধ্যমে আমাকে সাহায্য করা হয়েছে। একবার আমি নিদ্রায় ছিলাম, এমতাবস্থায় পৃথিবীর ধনভান্ডার সমূহের চাবি আমার হাতে অর্পণ করা হয়। আবূ হুরায়রা (রা) বলেন, রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) তো চলে গেছেন আর তোমরা তা বের করছ।

আমি যদি জীবিত থাকি তবে সব ইহুদি ও খ্রিষ্টানকে অবশ্যই আরব উপদ্বীপ থেকে বহিষ্কার করব (তিরমিজি:১৬০৬)।

"সন্ত্রাসের মাধ্যমে আমাকে বিজয়ী করা হয়েছে।" সহি বুখারি , ভলিউম-৪, বই -৫২, হাদিস- ২২০ ।

"আমাকে সুমিষ্ট কণ্ঠস্বর ও ভয়াবহতা সৃষ্টির মাধ্যমে বিজয়ী হওয়ার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। " সহি বুখারি, ভলিউম-৯, বই -৮৭, হাদিস -১২৭ ।

নবী (স) বলেছেন, "যে ব্যক্তি মারা গেল কিন্তু যুদ্ধ করল না, এমনকি যুদ্ধ করার ইচ্ছাও প্রকাশ করল না, সে এক প্রকারের মুনাফিক হিসেবে মারা গেল (আবুদাউদ-২৪৯৪)

কি বুঝলেন ? এসব কথা কিন্তু আমার মন গড়া কথা নয় । ইসলামের ঈমানদার মুমিনবান্দাদেরই তৈরি ইতিহাস থেকেই উদৃতি দিচ্ছি মাত্র । এখন কি মনে হচ্ছে না যে শুধু একলা আলালহ নন , দুনিয়ার শ্রেশঠ মহা মানব, আলালহর দোস্ত বলে খ্যাত নবীও একই অপরাধে অপরাধী ? এমন কি এই অপরাধ করাটাও মুসলমানদের কাছে অবশ্য পালনীয় ফরজ, যা একজন প্রকৃত মুমিনের মূল দায়িত্বও । কিন্তু কেন ?

এবার আসুন একটু জেনে নেই আল্লাহ মুসলমানদের কি কি দায়িত্ব দিয়েছেন –

ধর্ম মানেই অনুসরন বা অনুকরন । ইসলামের ক্ষেত্রেও তা ব্যতিক্রম নয় কিন্তু কেন ? তার কারন হালাল, হারাম, ফরজ, নফল ইত্যাদি নির্ধারণ করে যাতে সহি ভাবে ইসলাম পালন করে আল্লাহকে সন্তুষ্ট করে জান্নাত লাভ করতে পারে সেই জন্য । কিন্তু তার জন্য কি কি অনুসরন (“সালাফি”) করতে হবে সেটাও ইসলাম পরিস্কার করে দিয়েছে । ইসলামে অনুসরন বা অনুকরনের জন্য প্রথমে প্রাধান্য দিতে হবে কুরআন ও সহীহ হাদিস (আন-নাস) এর পর গুরুত্ব দিতে হবে ইজমা’ (সাহাবা বা কোনও যুগের সকল আলেমের ঐক্যমত)। তাতেও যদি কোনো বিষয়ের ফিকহ নির্ধারণ করা না যায় তাইলে “কিয়াস” ব্যবহার করতে হবে । আপনি যে মাজহাবেরই ( “মাজহাব” শব্দের অর্থ হলো পথ বা মত ) সালাফি কিন্তু একই । অর্থাৎ গন্তব্য সবারই এক শুধু যানবাহন ও রাস্তা আলাদা । অর্থাৎ সুরা তাওবা: ১৩, ১৪, ১৫ অনুযায়ী সকল মুসলমানকেই কাফেরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে এবং দুনিয়ার মাটিতে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করতে হবে যার জন্য মুসলমানরা কোন ভাবেই দায়ী হবে না । বিগত কয়েক দিনের ঘটনায় তো আমাদের দেশেই তার যথার্থ প্রয়োগ দেখছেন । অর্থাৎ একদিকে জিহাদ চলবে অন্য দিকে এসকল কিছুতেই ইহুদি নাসাদের ষড়যন্ত্র খুজে বের করে মুসলমানেরা তাদের ঈমানী দায়িত্ব পালন করেই চলবে । যার ধারা বাহিকতাতেই সবাই একই কথাই বলে চলেছে পাশাপাশি চলছে জিহাদী কার্যক্রম যা শুরু হয়েছিল সেই ৬২৩ সাল থেকে যা আজও বিদ্যমান । পিছিয়ে রয়েছে শুধু জ্ঞান, বিজ্ঞানের অভাবের কারনে ।

জাতিসংঘ প্রতিষ্ঠার পরে কোন কারন ছাড়া ও জাতিসংঘের বিনা অনুমতিতেই কি আমেরিকা কোন দেশকে দখল করতে গেছে ? কিন্তু মাথা মোটা সাদ্দাম ঠিকই কুয়েত দখল করেছে । সেই দখলের অজুহাতে আমেরিকাও সেখানে ঘাটি গেড়েছে । ঘাঁটি গেড়েছে সৌদিতেও । আনবিক বোমা মেরে ২য় বিশ্ব যুদ্ধ বন্ধের পরে জাপানেও আমেরিকার ঘাটি করেছে । তাইলে জাপানে আইএস, বোকোহারামের মত কোন দল তৈরি হচ্ছে না কেন ?

যাদের কাছে গান, বাজনা, শিল্প চর্চা, নাটক, কবিতা সহ বিধর্মিদের শিক্ষা গ্রহন ও দেখাও গুনাহ । একমাত্র ইবাদত (নিজস্ব তরিকায়) ও জিহাদ ছাড়া বাকী সবই যাদের কাছে হারাম ঘোসনা করে হত্যা করা ফরজ কাজ তারা কি এই সভ্য দুনিয়ার জন্য সন্ত্রাসী নয় ? তারা কি বর্তমানের জ্ঞান বিজ্ঞানের বহু মতের সমাজের জন্য জংলী নয় ? তাদের এই ইসলামী মতবাদ কি সন্ত্রাসবাদের মতবাদ নয় ? এই অন্যকে হত্যা করার মতবাদ কি আমেরিকা বা ইস্রাইল দিয়েছে ? আমেরিকা অস্ত্র দিয়েছে বলেই আমেরিকা সন্ত্রাসের মদদদাতা হয় তাইলে যখন ফিলিস্থিনি শিশু যখন ইস্রাইল সেনার দিকে পাথর ছুড়ে মারে তখন সন্ত্রাসের মদদ দাতা হিসাবে কি পাথর তৈরি ও সাপ্লাইকারী হিসাবে আপনাদের আল্লাহকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান ? আমাদের মহান মুক্তি যুদ্ধে ভারত আমাদেরকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ দিয়ে যাহায্য করেছে বলে কি স্বাধীনতার জন্য ভারতকেই সম্পূর্ন রূপে দায়ী বা পুরস্কার দিবেন ?

দোজখের শাস্তির ভয়ে জিহাদে গিয়ে আল্লাহর ক্ষমা প্রাপ্ত হতে কে কাকে আটকাবে ? বিবেক যেখানে ধর্মের শিকলে বন্দি সেখানে কত দিন শুধু সহি নয়, সহি নয় বলে আকটাবেন,? এই জন্য একজন মুসলমান যতক্ষন পর্যন্ত নিজেকে শুধু মুসলমান হিসাবে দাবী করে ততক্ষন পর্যন্ত সে নিজের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ (জিহাদ) লালন করে আর এই কারনেই আইএস, তালেবান, বোকোহারাম সহ সকল মুসলিম সন্ত্রাসবাদের প্রশ্নে প্রায় সকল মুসলিম সাফাই স্বাক্ষী দেয়– “ ওরা আমেরিকার তৈরি “।

এর পরেও যারা বলেন –“ইসলাম শান্তির ধর্ম” এবং “ সবই মুসলমান ও ইসলামের বিরুদ্ধে ইহুদি নাসাদের ষড়যন্ত্র “ তারা ঈমানদার / “সালাফি”র পাহাড়াদার নাকি বিবেকবান সেটা বিচার করার দায় আপনাদের । শুধু একটাই আপসুস ইতিহাস যে কাউকে ক্ষমা করে না সেটা তারা জীবন না দেওয়া পর্যন্ত স্বীকার করে না ।

এত কিছুর পরেও যখন এই আয়াত পাবেন “ জেনে নাও, নিশ্চয় আল্লাহ কঠোর শাস্তি দাতা ও নিশ্চয় আল্লাহ ক্ষমাশীল-দয়ালূ। [সুরা মায়েদা: ৯৮] । তখন কি এমনই ভাববেন না যে, আল্লাহ মুসলমানদের জন্য ক্ষমাশীল দয়ালু হলেও বিধর্মিদের বেলায় একজন শ্রেষ্ঠ সন্ত্রাসী ?

মুসলমানদের সকল কাজের পিছনেই যদি ইহুদি নাসাদের ষড়যন্ত্র দেখতে পায় তাইলে বিধর্মিদেরকে কাফের হিসাবে চিহ্নিত করাও কি আলালহর চক্রান্ত নয় ? তাইলে ইহুদি নাসাদের চক্রান্ত স্বীকার করলেও আল্লাহ বা নবীর চক্রান্ত স্বীকার করে না কেন ?

টীকা:
“মাজহাব” শব্দের অর্থ হলো পথ বা মত। ইসলামী আইনের পরিভাষায়, মাজহাব হলো এমন কিছু “উসুল” যা অনুসরণ করে কোনও কাজের শারঈ’ বিধান (অর্থাৎ হালাল, হারাম, ফরজ, নফল ইত্যাদি) নির্ধারণ করা হয় ।

Comments

কাঠমোল্লা এর ছবি
 

ইসলামে জিহাদ হলো সর্বশ্রেষ্ট পন্থা যার মাধ্যমে আমাদের নবী সারা দুনিয়ায় ইসলাম প্রচার ও প্রতিষ্ঠার জন্যে বলে গেছেন। তিনি নিজেও বলেছেন - সন্ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে তাকে বিজয়ী করা হয়েছে । অর্থাৎ সন্ত্রাসই হলো ইসলামের চুড়ান্ত কথা। সেখানে আপনার এইসব কথা কোনই কাজে আসবে না। আমরা সন্ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে সারা দুনিয়া অচল করে দেব। তখন দুনিয়ার মানুষ ইসলাম গ্রহন না করে যাবে কোথায় ?

 
মূর্খ চাষা এর ছবি
 

কিন্তু আপসুস !! এই নাস্তিক সরকার এই জিহাদী ভাইদেরকে জংগী বলে ডাকে । আল্লাহ নিশচয় গজব দিবে ।

.....................................................................................................................................
হিন্দু , মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃস্টান, আলীগ, বিনপি হওয়ার আগে মানুষ হতে হয় ।

 
পৃথু স্যন্যাল এর ছবি
 

ইসলাম জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না। শুধু মুসলমানদেরকে শহীদ হবার লোভ দেখায়। Blum 3

*************************************
আমি কারো দেখানো পথে চলি না।
আমার ইচ্ছে মত পথের তৈরী করি।
^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^

 
মূর্খ চাষা এর ছবি
 

শহীদদেরকে আলালহ কত পুরস্কৃত করবেন তা জানেন না, জানলে আপনিও শহীদ হওয়ার জন্য ছটফট করতেন ।

.....................................................................................................................................
হিন্দু , মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃস্টান, আলীগ, বিনপি হওয়ার আগে মানুষ হতে হয় ।

 
পার্থিব এর ছবি
 

কোন রাখ ঢাক না রেখেই প্যাগান আর মুশরীকদের পক্ষে লিখেছেন। আসলে মুহাম্মদ সা এসেছিলেন কাবা ঘরকে মুশরীকদের কবল থেকে রক্ষা করে এক আল্লাহর একত্ববাদ প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এর বিরুদ্ধচারন করেছিল কুরায়শ আর প্যাগানরা। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে কাবা ঘর উদ্ধার হয় এবং আজো কোটি কোটি মানুষ কাবা ঘরকে কেন্দ্র করে নামাজ পড়ে।
কিন্তু এটাত আপনাদের মত প্যাগানদের সহ্য হবে না খুব স্বাভাবিক ভাবেই। তাতে অবশ্য কিছু যায় আসে না।

 
মূর্খ চাষা এর ছবি
 

কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে কাবা ঘর উদ্ধার হয় এবং আজো কোটি কোটি মানুষ কাবা ঘরকে কেন্দ্র করে নামাজ পড়ে।

আল্লাহর রহমত নাকি শঠতা, বেঈমানী ও তরবারির জোরে ? পোস্টে কোন কথাটা মিথ্যা বলা হয়েছে সেটা নির্দৃষ্ট করে বলুন ।

.....................................................................................................................................
হিন্দু , মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃস্টান, আলীগ, বিনপি হওয়ার আগে মানুষ হতে হয় ।

 
রুশদী এর ছবি
 

বিগত ১০ বছরে যুক্তরাষ্ট্র; ইউরোপ আর ইসরাইলের হামলায় আফগানিস্থান, ইরাক, লিবিয়া , প্যালেস্টাইন সহ আরো বেশ কয়েকটি মুসলিম দেশ প্রায় সম্পুর্ন বিদ্ধস্ত হয়েছে। ১৫ লাখের বেশী নারী-শিশু সাধারন মানুষ মারা গেছে। কয়েক কোটি মানুষ উদ্বাস্তু হয়েছে। এগুলার জন্য অবশ্য ইহুদী খৃষ্টান দায়ী নয়। কারন এখন নাস্তিক বেশী। উন্নত দেশগুলোতে ইহূদী খৃষ্টান খুব একটা দেখা যায় না।

 
মূর্খ চাষা এর ছবি
 

তাইলে মুসলমানরা কথায় কথায় ইহুদী নাসাদের দোষ দেয় কি শুধু ঈমান রাখার জন্য ?

.....................................................................................................................................
হিন্দু , মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃস্টান, আলীগ, বিনপি হওয়ার আগে মানুষ হতে হয় ।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মূর্খ চাষা
মূর্খ চাষা এর ছবি
Offline
Last seen: 1 month 3 weeks ago
Joined: বুধবার, জানুয়ারী 15, 2014 - 2:00অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর